সর্বশেষ সংবাদ :

ভর্তি ফল বিপর্যয় কিসের ইঙ্গিত–দৈনিক মুক্তকন্ঠ সম্পদক মোঃ সফিকুর রহমান সেলিম?

Share Button
45734_480876018639497_1811827755_n
মোঃ সফিকুর রহমান সেলিম,ঢাকা
৩০ সেপ্টেম্বর কালের কণ্ঠে প্রকাশিত হয়েছে হায়াৎ মামুদের ‘আমাদের শিক্ষার গোড়ায় গলদ’ শীর্ষক একটি ক্ষুদ্র নিবন্ধ। নিবন্ধটিতে প্রধানত উচ্চশিক্ষা-পূর্ববর্তী প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষার সমস্যা নিয়ে কথা বলা হয়েছে। শিক্ষার মান ও সংকটের বিষয়টি সম্প্রতি তর্ক-বিতর্কের পর্যায়ে উপস্থিত হওয়ার মূল কারণ ঢাকা ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার ডিজিটাল জালিয়াতি এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তীচ্ছু বিপুলসংখ্যক শিক্ষার্থীর ফেল করার সূত্রে। এ ইস্যুতে মিডিয়াতে সমালোচনা, হিসাব-নিকাশ এবং শিক্ষার মান নিয়ে নানা বিতর্কে পড়তে ও শুনতে হচ্ছে আমাদের। এমনকি ভর্তি বাছাইয়ে ত্রুটি সম্পর্কে ইঙ্গিত করা হয়েছে। গত ২৮ সেপ্টেম্বর শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির বাছাই-প্রক্রিয়া ত্রুটিপূর্ণ। ভর্তি পরীক্ষায় বেশির ভাগই ফেল করলে তার দায় বর্তাবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের, এটাও সত্য। শিক্ষামন্ত্রী বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালনের আহ্বান জানিয়েছেন। প্রয়োজনে আইন পরিবর্তন করার পরামর্শও দিয়েছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকটি অনুষদের অধীনে বিভিন্ন ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ফল বিপর্যয় জনমনে শিক্ষার মান নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। গত ২৩ সেপ্টেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘খ’ ইউনিটের ফল প্রকাশ করা হয়। এতে দেখা যায়, ৯০ শতাংশেরও বেশি পরীক্ষার্থী ফেল করেছে। পাস করা শিক্ষার্থীদের মধ্যে মাত্র দুজন ইংরেজি বিভাগে ভর্তির যোগ্যতা অর্জন করেছে। শেষ পর্যন্ত ইংরেজিতে ভর্তির শর্ত শিথিল করতে বাধ্য হয়েছে কর্তৃপক্ষ। কোনো কোনো বিশ্লেষক জিপিএ বা এ+ বৃদ্ধির পরিবর্তে শিক্ষার মান বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছেন। উল্লেখ্য, ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার প্রতিটি ইউনিটে পাসের চেয়ে ফেলের পরিমাণ বেশি। প্রতিটি ইউনিটে গোল্ডেন এ+ এবং সাধারণ এ+ শিক্ষার্থীর অভাব নেই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি ইউনিটের ফলাফল বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, গোল্ডেন এ+ এবং সাধারণ এ+ শিক্ষার্থীরা বেশি অকৃতকার্য হয়েছে। উচ্চশিক্ষার জন্য একজন শিক্ষার্থীকে গড়ে না তুলে মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় ভালো ফলাফল করার তাগিদ দেওয়া হয়। যার ফলে এমনটা হচ্ছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs