সর্বশেষ সংবাদ :

অবৈধ সরকার যেকোনো সময় নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে : মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

Share Button

1958417_722196114503015_6497920886327805209_n

রিপোর্টঃ-মোঃ সফিকুর রহমান সেলিম
ঢাকা, ১০ অক্টোবর ২০১৪।

অবৈধ সরকার যেকোনো সময় নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে : মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

ঢাকা, ১০ অক্টোবর, শুক্রবার : ‘অবৈধ সরকার যেকোনো সময় নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে’- বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব জনাব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আজ শুক্রবার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে শহীদ জেহাদ স্মৃতি পরিষদ আয়োজিত ‘ঐতিহাসিক জেহাদ দিবসের ২৪তম স্মরণ সভায়’ তিনি এমন মন্তব্য করেন।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব জনাব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, বর্তমান সরকার চোরাবালির ওপর দাঁড়িয়ে আছে এবং মিথ্যার ওপর টিকে আছে। যেকোনো সময় এ অবৈধ সরকার নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে।

কোনো দেশই বর্তমান সরকারকে স্বীকৃতি দিচ্ছে না দাবি করে তিনি বলেন, নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে শেখ হাসিনার কোনো বৈঠক হয়নি। কোনো আলোচনা হয়নি। সেটা ছিল শুধু পাঁচ মিনিটের ফটোসেশন।

সরকাবিরোধী আন্দোলন নিয়ে নেতা-কর্মীদের হতাশ না হওয়ার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, যারা হতাশায় ভোগছেন, তাদের বলছি, হতাশাই শেষ কথা নয়। প্রতিটি রজনীর পরই নতুন সূর্য উদিত হয়। স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলন হয়েছে নয় বছর। আইয়ুব খানের বিরুদ্ধে ১২ বছর সংগ্রাম করতে হয়েছে। এই স্বৈরাচার সরকারেরও পতন ঘটিয়ে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করব।

তিনি বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য আন্দোলন করে না বরং জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে আন্দোলন করছে। দেশের জনগণ এই স্বৈরাচার অবৈধ সরকারকে চায় না। এবারও অতীতের মত এই অবৈধ সরকারকে ক্ষমতা থেকে হটাবে দেশের জনগণ।

আওয়ামী লীগ একটি পরিবারের বাইরে কিছু চেনে না দাবি করে জনাব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অভিযোগ করেন, ভাষা মতিনকে সরকার মর্যাদা দেয়নি। আওয়ামী লীগ একটি মানুষ ও একটি পরিবারের বাইরে কিছু চেনে না। তাজউদ্দীন আহমদ, ওসমানী কাউকে আওয়ামী লীগ মনে রাখে না। তারা মুক্তিযুদ্ধের উপপ্রধান সেনাপতি এ কে খন্দকারের বাপ-দাদার নাম ভুলিয়ে দিয়েছে।

নব্বইয়ের স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে নিহত জেহাদের স্মৃতিচারণা করে তিনি বলেন, নাজির উদ্দিন জেহাদ দেশের অনুপ্রেরণা। তিনি আলোর পথ দেখিয়েছেন। তিনি গণতন্ত্রের জন্য প্রাণ দিয়েছেন।

এছাড়া এ বছর শান্তিতে যৌথভাবে পাকিস্তানের মালালা ইউসুফজাই ও ভারতের কৈলাশ সত্যার্থী নোবেল পুরস্কার পাওয়ায় তাদেরকে অভিনন্দন জানান তিনি।

বিএনপির শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক খায়রুল কবির খোকনের সভাপতিত্বে স্মরণ সভায় বক্তব্য রাখেন- বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক আসাদুজ্জামান রিপন, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক হাবীব-উন-নবী সোহেল, সহ তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব, মহিলাদলের সাধারণ সম্পাদক শিরিন সুলতানা, ছাত্রদলে সাবেক সভাপতি সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, ছাত্রদলের সভাপতি আব্দুল কাদের ভুঁইয়া জুয়েল প্রমুখ।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs