সর্বশেষ সংবাদ :

রেলমন্ত্রীর বিয়ে নিয়ে যত আলোচনা

Share Button

 

93366_1

ডিসেম্বরে নয়, নভেম্বরেই রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক সংসার জীবন শুরু করছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আগ্রহের কারণেই এগিয়ে আনা হয়েছে মন্ত্রীর বিয়ের অনুষ্ঠানের দিনক্ষণ। সব কিছু ঠিক থাকলে ১৪ নভেম্বর শুক্রবার সংসদ ভবনের এলডি হলে রেলমন্ত্রীর বিবাহোত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হবে। মন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ একাধিক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

রেলমন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ সূত্রগুলো জানায়, ৬৮ বছর বয়সী রেলমন্ত্রী মুজিবুল হকের বিয়ের অনুষ্ঠান হবে তিন দিনব্যাপী। বিয়ের জন্য ২৯ অক্টোবর থেকে ৩ নভেম্বর পর্যন্ত ছয় দিন নির্দিষ্ট করে রাখা হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে যে কোনো দিন বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হবে। সূত্র জানায়, রেলমন্ত্রীর বড় ভাই এবং রাষ্ট্রপতি হজ থেকে দেশে ফেরার পর প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে সময় নিয়ে চূড়ান্ত দিনক্ষণ নির্ধারণ করা হবে। আর ১৪ নভেম্বর সংসদ ভবনের এলডি হলে বিবাহোত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হবে সাড়ে তিন হাজার অতিথিকে। যেখানে থাকবেন সরকারের মন্ত্রী, সংসদ সদস্য, বিরোধীদলীয় সংসদ সদস্য, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের শীর্ষ নেতা, ব্যবসায়ী, সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ, বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনের শীর্ষ নেতারা। এদিকে নভেম্বরে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা এবং সংসদ ভবনে বিবাহোত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হলেও ৬ ডিসেম্বর রেলমন্ত্রীর গ্রামের বাড়ি চৌদ্দগ্রাম উপজেলার বশুয়ারায় আরেকটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। সেখানে আমন্ত্রণ জানানো হবে অন্তত ১০ হাজার মানুষকে। এই আয়োজনের জন্য রেলমন্ত্রীর নিজের ইউনিয়ন শ্রীপুরের চেয়ারম্যান শাহজালাল মজুমদারকে সমন্বয়ক করে ইতিমধ্যে ৬০ সদস্যের একটি আয়োজক কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির অধিকাংশ সদস্য রেলমন্ত্রীর নির্বাচনী এলাকা চৌদ্দগ্রামের আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, এখন বিয়ের অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণপত্র ছাপানোর কাজ চলছে। রেলমন্ত্রীর বিয়ের অনুষ্ঠান নিয়ে কুমিল্লার আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মী এবং স্থানীয় লোকজনদের মধ্যে উৎসাহের কমতি নেই।

এদিকে রেলমন্ত্রীর হবু স্ত্রী হনুফা আক্তার রিক্তার চান্দিনার মীরাখোলা গ্রামের বাড়িতে কোনো অনুষ্ঠান হবে কি না তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে রেলমন্ত্রীর বিয়েকে কেন্দ্র করে কনের গ্রামের বাড়ির এলাকায় বাড়িঘর প্রস্তুতসহ সড়ক উন্নয়নের কাজ চলছে। চান্দিনা উপজেলা প্রকৌশল অফিস সূত্রে জানা গেছে, গল্লাই-মীরাখোলা সড়কের এক হাজার ৩৩২ মিটার রাস্তার উন্নয়ন কাজ শুরু করার প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৫০০ মিটার সড়কের কার্পেটিং করা হবে। বাকি ৮৩২ মিটার সড়ক হবে ইট গাঁথুনির। ওই সড়কে দুটি কালভার্ট নতুন করে নির্মাণ করা হবে। এ ছাড়া সড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে ৪০০ মিটার রিটার্নিং ওয়াল নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতর কুমিল্লার নির্বাহী প্রকৌশলী এএসএম মুহসিন সড়ক উন্নয়নের পুরো কাজ তদারকি করছেন বলে জানা গেছে। এদিকে মন্ত্রীর বিয়ে উপলক্ষে মীরাখোলা গ্রামের রাস্তাঘাটের উন্নয়ন কাজ শুরু হওয়ায় স্থানীয়রা দারুণ খুশি।

হনুফা বৃত্তান্ত : রেলমন্ত্রী মুজিবুল হকের হবু স্ত্রী বৃশ্চিক রাশির জাতিকা হনুফা আক্তার রিক্তার জন্ম ১৯৮৫ সালের ২০ মে মীরাখোলা গ্রামের সম্ভ্রান্ত মুন্সী বাড়িতে। তার পিতা মৃত আবদুল হামিদ উল্লাহ্। দুই ভাই ও পাঁচ বোনের মধ্যে সবার ছোট হনুফা। তিনি চান্দিনা আবেদা নূর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২০০১ সালে এসএসসি পাস করেন। আবেদা নূর উচ্চ মাধ্যমিক বিজনেস ম্যানেজমেন্ট ইনস্টিটিউট থেকে ২০০৩ সালে অনুষ্ঠিত এইচএসসি এবং চান্দিনা রেদোয়ান আহমেদ কলেজ থেকে ২০০৬ সালে বিএ পাস করেন। পরবর্তীতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স ডিগ্রি লাভ করেন। পাশাপাশি তিনি ব্যাচেলর অব ‘ল (এলএলবি) পাস করেন। তার বড় ভাই নাছিরউদ্দিন মুন্সী দুবাই প্রবাসী। ছোট ভাই আলাউদ্দিন মুন্সী সম্প্রতি মালদ্বীপ থেকে দেশে এসেছেন। রেলমন্ত্রীর বিয়ের বিষয়ে জানতে চাইলে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি শাহিনুল ইসলাম শাহিন জানান, রেলমন্ত্রী জীবনে অনেক নেতা তৈরি করেছেন। ১০ টাকা রোজগার করলেও তা নেতা-কর্মী নিয়ে খেয়েছেন। নিজের সুখ-শান্তির দিকে তাকাননি। তার বিয়ের সিদ্ধান্তে আমরা আনন্দিত।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs