সর্বশেষ সংবাদ :

অবরোধের সমর্থনে রাজধানীতে মিছিল সমাবেশ ও ভাঙচুর

Share Button

101322_2-2

রিপোর্ট:দৈনিক মুক্তকন্ঠ
প্রকাশ: ১৪ জানুয়ারী, ২০১৫।

ককটেল বিস্ফোরণ, গাড়ি ভাঙচুর, মিছিল-সমাবেশের মধ্য দিয়ে গতকালও রাজধানীতে ২০ দলীয় জোটের অবরোধ কর্মসূচি পালিত হয়। নগরীতে কিছু গণপরিবহন চলাচল করলেও সেগুলোতে যাত্রী ছিল তুলনামূলক কম। নগরজুড়ে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক লক্ষ্য করা গেছে। অনেক এলাকায় ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ও বেসরকারি অফিস বন্ধ ছিল। বাসটার্মিনালগুলো থেকে দূরপাল্লার বাস ছেড়ে যেতে দেখা যায়নি। তবে আশপাশের কয়েকটি জেলায় চলাচলকারী হাতেগোনা কয়েকটি বাস ঢাকা ছেড়ে যেতে এবং প্রবেশ করতে দেখা যায়। রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ মোড়সহ প্রতিটি রাস্তা ও অলিগলির মুখে কড়া পুলিশি পাহারা ছিল। ছিল র‌্যাবের টহল।

মতিঝিলে গাড়ি ভাঙচুর আগুন ও ককটেল বিস্ফোরণ :  গতকাল বিকেল ৫টার দিকে মতিঝিল জনতা ব্যাংক হেড অফিসের পূর্ব পাশের (পাট অধিদফতরের পশ্চিম পাশে) রাস্তায় মুহুর্মুহু ককটেল বিস্ফোরণের  ঘটনা ঘটে। এ সময় কে বা কারা কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর ও দু’টি গাড়িতে আগুন দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে সন্দেহভাজন তিনজনকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হঠাৎ সাত-আটজন যুবক ক্রিকেট খেলার স্ট্যাম্প হাতে নিয়ে ১৫ থেকে ২০ টি ককটেল নিক্ষেপ করতে করতে গুলিস্তানের দিকে যাচ্ছিল। তারা কখনো নিচের দিকে কখনো উপরের দিকে ককটেল নিক্ষেপ করে বিস্ফোরণ ঘটায়। এতে পথচারীরা ভয়ে ছোটাছুটি করে। এ সময় তারা পাট অধিদফতরের নিচে পার্কিং করা অন্তত সাতটি প্রাইভেটকার এবং কয়েকটি যাত্রীবাহী বাস ভাঙচুর করে। এ ছাড়া একটি বিআরটিসি বাস ও একটি হলুদ টেক্সিক্যা বে আগুন ধরিয়ে দেয়। আগুনে বিআরটিসি বাসের সামনের দিকে ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং টেক্সিক্যাবটি পুড়ে যায়। এ ঘটনার পরপরই বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে সরকারদলীয় একটি মিছিল ওই এলাকা কয়েকবার প্রদক্ষিণ করে।

মিটফোর্ডে ককটেল বিস্ফোরণ : গতকাল দুপুরে পুরান ঢাকার স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজের (মিটফোর্ড হাসপাতাল) সামনে পরপর চারটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটেছে। এ সময় মেডিক্যাল কলেজের ভেতরে এক অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মো: নাসিম উপস্থিত ছিলেন। তবে এ ঘটনায় পুলিশ কাউকে আটক করতে পারেনি। কোতোয়ালি জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার আহাদুজ্জমান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, সন্ধানী নামে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সলিমুল্লাহ শাখার পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ছাড়াও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মনি, স্থানীয় সংসদ সদস্য হাজী মোহাম্মদ সেলিম, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের নেতা ডা: মিল্লাতসহ কলেজের শিকরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান শুরুর পরপরই মঞ্চের পেছনে পরপর চারটি ককটেল বিস্ফোরণের শব্দ পাওয়া যায়। এতে কেউ হতাহত হননি বলেও জানান তিনি। তিনি আরো জানান, ঘটনার পর এলাকাজুড়ে তল্লাশি শুরু করে পুলিশ।

ধানমন্ডিতে লেগুনায় আগুন : সকাল সাড়ে ৮টার দিকে ধানমন্ডির ২৭ নম্বর সাতমসজিদ রোডে অবরোধের সমর্থনে মিছিল করেছেন জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীরা। তাদের মিছিল শেষ হওয়ার কিছুক্ষণ পর ওই এলকায় একটি লেগুনায় কে বা কারা আগুন ধরিয়ে দেয়। অগ্নিকাণ্ডের বিষয়টি নিশ্চিত করে ধানমন্ডি থানার ডিউটি অফিসার এসআই মাসুম জানান, কে বা কারা আগুন দিয়ে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় কাউকে আটক করা যায়নি।

বনশ্রীতে গাড়ি ভাঙচুর : সকাল সাড়ে ৯টার দিকে দক্ষিণ বনশ্রীতে একটি মিছিল বের হয়। এ সময় বেশ কিছু গাড়ি ভাঙচুর করা হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে আসার আগেই তারা পালিয়ে যায়।

পল্টন এলাকায় মিছিল:  মঙ্গলবার দুপুর আড়াইটায় রাজধানীর পল্টন-ফকিরাপুল এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল ও সড়ক অবরোধ করেছে জামায়াতে ইসলামী পল্টন থানা শাখা। মিছিলটি দৈনিক বাংলা মোড় থেকে শুরু হয়ে ফকিরাপুল মোড়ের কাছে এসে শেষ হয়। মিছিলের নেতৃত্ব দেন মহানগরী মজলিসে শূরার সদস্য আমিনুর রহমান।

ডেমরায় জামায়াতের মিছিল :  সকালে ডেমরা থানা জামায়াতের উদ্যোগে কোনাপাড়া থেকে একটি মিছিল শুরু হয়ে নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে রাস্তা অবরোধ করে সমাবেশ করে। সমাবেশে বক্তব্য দেন ডেমরা থানা আমির মো: হাফিজুর রহমান। উপস্থিত ছিলেন জামায়াত নেতা মতিউর রহমান, মোহাম্মদ আলী, আব্দুল হামিদ ও মির্জা হেলাল প্রমুখ। রাজধানীর অন্য কয়েকটি এলাকায় মিছিল-সমাবেশ করে জামায়াত। শিবিরের মিছিল সমাবেশ : অবরোধের অষ্টম দিনে অবরোধ গতকাল রাজধানীসহ সারা দেশে মিছিল, সড়ক অবরোধ ও সমাবেশ করেছে ছাত্রশিবির। বরাবরের মতো কর্মসূচি পালনকালে পুলিশ হামলা চালিয়ে ৬৩ জন নেতাকর্মীকে আহত ও ২৮ নেতাকর্মীকেগ্রেফতার করেছে। ছাত্রশিবির ঢাকা মহানগরী পশ্চিম শাখার উদ্যোগে বেলা ১১টায় কেন্দ্রীয় সমাজসেবা সম্পাদক মহিউদ্দিন আহমেদের নেতৃত্বে একটি মিছিল ধানমন্ডি এলাকায় শুরু হয়ে সড়ক অবরোধ করে। এ সময় শাখা সভাপতি তামিম হোসেনসহ নেতকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সকাল ৭টায় শিবিরের কেন্দ্রীয় প্লানিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট সম্পাদক শাহিন আহমেদ খানের নেতৃত্বে একটি মিছিল ডেমরা আল আমিন রোড থেকে শুরু হয়ে ফার্মের মোড়ে গিয়ে রাজপথ অবরোধ করে। এ সময় শাখা সেক্রেটারি সাদেক বিল্লাহসহ নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

শিবির ঢাকা মহানগর পূর্ব এর উদ্যোগে সকাল ৯টায় শাখা অর্থসম্পাদক তোজাম্মেল হক ও প্রচার সম্পাদক আব্দুল কাদেরের নেতৃত্ব একটি মিছিল শুরু হয়ে রাজপথ অবরোধ করে। এ সময় স্থানীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

রাজধানীর উত্তরা, ভাটারা ও মহাখালীতে মিছিল ও সড়ক অবরোধ করেছে ছাত্রশিবির ঢাকা মহানগরী উত্তর। উত্তরায় সকাল সাড়ে ৮টায় মহানগরী উত্তরের প্রশিণ সম্পাদক আইয়ুব আলী ও সাহিত্য সম্পাদক আজিজুল ইসলাম সজীবের নেতৃত্বে, ভাটারার বাঁশতলা এলাকায় সকাল ৮টায় ভাটারা থানা সভাপতি আব্দুর রহমানের নেতৃত্বে ও মহাখালীর চেয়ারম্যানবাড়ি এলাকায় সকাল ৮টায় ঢাকা মহানগরী উত্তরের ব্যানারে রাজপথে মিছিল ও অবরোধ করেছে তিতুমীর কলেজ শিবির।

 

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs