সর্বশেষ সংবাদ :

ট্রেনের সিডিউলে বিপর্যয়, বিএনপিকে দায়ী করলেন মন্ত্রী

Share Button

1412436763

রিপোর্টারঃ-মোঃ সফিকুর রহমান সেলিম,ঢাকা
০৪ অক্টোবর ২০১৪

ঈদে বাড়ি ফেরাদের জন্য দুঃসংবাদ বয়ে এনেছে ট্রেন। রাজধানীর কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে ট্রেনের শিডিউলে শনিবার চরম বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। এতে ঈদে ঘরমুখী মানুষকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

তবে রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক স্টেশনে আসার পরই একটি ট্রেন সময়মতো ছেড়ে গেছে। পরে সাংবাদিকরা তাকে ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয়ের কথা বললে তিনি এজন্য বিএনপিকে দায়ী করেন।

কমলাপুর স্টেশনে গিয়ে দেখা গেছে, দিনাজপুরগামী একতা এক্সপ্রেস ট্রেন ছাড়ার কথা ছিল সকাল ১০টার দিকে। তবে ট্রেনটি ছেড়েছে বেলা আড়াইটার দিকে।

একইভাবে রংপুরগামী রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেন ছাড়ার কথা ছিল সকাল নয়টার দিকে। সাড়ে পাঁচ ঘণ্টা পর ওই ট্রেনের যাত্রীদের বিকল্প ট্রেনে করে রংপুরে পাঠানো হয়। বিকেল সাড়ে পাঁচটা পর্যন্ত ট্রেনটি রাজধানীতে এসে পৌঁছায়নি।

এদিকে, চট্টগ্রামগামী চট্টলা এক্সপ্রেস ছাড়ার কথা বেলা ১১টার দিকে। ট্রেনটি ছেড়েছে বেলা দেড়টার দিকে। চট্টগ্রামগামী আরো একটি ট্রেন মহানগর গোধূলি কমলাপুর স্টেশনে বেলা দুইটা ৫০ মিনিটে এসে পৌঁছানোর কথা ছিল।

তবে রেলওয়ের তথ্য কেন্দ্রে টাঙানো কাগজ ও মনিটর বলছে, ট্রেনটি আনুমানিক রাত ১০টার দিকে স্টেশনে এসে পৌঁছাতে পারে। ওই সময় এসে পৌঁছালে ছাড়বে তার আরো এক ঘণ্টা পর অর্থাৎ রাত ১১টার দিকে।

তথ্য অনুসন্ধান কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়, একটি কাগজে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের নামে সই দিয়ে সময়সূচি লিখে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু সেখানে কেউ উপস্থিত নেই।

এদিকে, বেলা পৌনে তিনটার দিকে রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক কমলাপুর স্টেশনে আসেন। তিনি আসার পরই কেবল চট্টগ্রামগামী সুবর্ণ এক্সপ্রেস ট্রেনটি সময়মতো (বেলা তিনটায়) স্টেশন ছেড়ে যায়। এটি আজকের দিনের একমাত্র সময়মতো ছেড়ে যাওয়া ট্রেন।

সাংবাদিকেরা মন্ত্রীকে শিডিউল বিপর্যয়ের বিষয়ে প্রশ্ন করলে মুজিবুল হক বলেন, ‘এটা অনিচ্ছাকৃত। সব ট্রেন শিডিউল মিস করে, এটা ঠিক না।’

তিনি বলেন, ‘উপচে পড়া ভিড়, সীমিত সম্পদ আর নারী, শিশু, পরিবারের সদস্য নিয়ে ট্রেনে ওঠায় সময় একটু বেশি লাগছে। এজন্য সব স্টেশনেই ট্রেন একটু বেশি সময় থামতে হচ্ছে। আমরা আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছি।’

আরেক প্রশ্নে ট্রেনের সিডিউল বিপর্যয়ে মন্ত্রী বিএনপিকে দায়ী করেন। বলেন, ‘এটা সব সময় হয় না, মাঝে মধ্যে হয়। এজন্য দায়ী বিএনপি এবং খালেদা জিয়া।’

মুজিবুল হক বলেন, ‘বিএনপির আমলে জরা-জীর্ণ রেল পথের কোনো উন্নয়ন না হওয়ায় বিভিন্ন জায়গায় ট্রেনের গতি কমাতে হচ্ছে। এতে নির্ধারিত সময় ট্রেন ছাড়া সম্ভব হচ্ছে না এবং ট্রেন গন্তব্যে পৌঁছাতেও দেরি হচ্ছে।’

তিনি বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালে রেল সেক্টরে কোনো কাজই করেনি। পক্ষান্তরে বর্তমান সরকার জীর্ণ রেলপথ উন্নয়নের পাশাপাশি জোট সরকারের সময়ে যেসব জায়গায় কাজ হয়নি সেখানে কাজ করে যাচ্ছে।

মন্ত্রী বলেন, ‘যাত্রীরা যেন নির্বিঘ্নে গন্তব্যে পৌঁছে ঠিকমত স্বজনদের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করতে পারে, সে লক্ষ্যে আমরা কাজ করছি।’

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs