সর্বশেষ সংবাদ :

বিআরডিবির জমি দখল করে লতিফ সিদ্দিকীর বাড়ি!

Share Button

pic-18_136495

রিপোর্টারঃ-মোঃ সফিকুর রহমান সেলিম,ঢাকা
০৩ অক্টোবর ২০১৪

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় থেকে ‘অব্যাহতি পাওয়া’ মন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে মুখ খুলতে শুরু করেছে তাঁর নির্বাচনী এলাকা টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনের লোকজন। এর মধ্যে রয়েছে ক্ষমতার অপব্যবহার, চাঁদাবাজি, জমি দখলসহ বিভিন্ন অভিযোগ। কালিহাতী শহরে প্রাচীরঘেরা তাঁর দোতলা বাড়িটি বিআরডিবির জায়গা দখল করে তৈরি বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
গতকাল শুক্রবার দুপুরে সরেজমিনে কালিহাতী শহর ঘুরে দেখা গেছে, বাসস্ট্যান্ড, চায়ের স্টল থেকে সর্বত্র আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে লতিফ সিদ্দিকীর প্রসঙ্গ। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয়রা জানায়, শহরের যে দোতলা বাড়িটি লতিফ সিদ্দিকীর, সেটি তৈরির সময় বিআরডিবির জমি দখল করা হয়েছে।
এ বিষয়ে বিআরডিবির তৎকালীন চেয়ারম্যান শুকুর মাহমুদ কালের কণ্ঠকে জানান, ১৯৯৬ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে উপজেলা পরিষদ চত্বরের পাশে মুন্সিপাড়ায় দেড় লক্ষাধিক টাকা দিয়ে ৬ শতাংশ জমি কেনেন লতিফ সিদ্দিকী। পরে ওই বছরই সেই জমির পাশে বিআরডিবির প্রায় ১০ শতাংশ জমি দখলে নিয়ে সেখানে দোতলা ভবন নির্মাণ করেন।
শুকুর মাহমুদ জানান, দখল করা জমি ছেড়ে দেওয়ার জন্য লতিফ সিদ্দিকীকে লিখিতভাবে জানানো হয়। প্রথম দিকে তাঁর পক্ষ থেকে সময় নেওয়া হলেও পরে আর সাড়া দেননি। জমি মাপের সময় তাঁকে জানানো হলে তাঁর পক্ষে তখনকার এসি ল্যান্ড উপস্থিত ছিলেন। তখন সবার উপস্থিতিতে জমি মেপে সেখানে সীমানা খুঁটি পোঁতা হয়েছিল। কিন্তু দখল করা জমি তিনি আর বুঝিয়ে দেননি।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দোতলা বাড়িটির চারপাশে রয়েছে সীমানাপ্রাচীর। ভবনের সামনে একটি মাইক্রোবাস ও একটি পিকআপ ভ্যান দাঁড়িয়ে। প্রধান গেটের সামনের রাস্তায় দেখা হয় এক দোকানদারের সঙ্গে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে তিনি জানান, বাড়িটির দেখাশোনা করেন শাজাহান নামের এক কেয়ারটেকার। তাঁর কাছে জিজ্ঞেস করলে বাড়িটি সম্পর্কে জানা যাবে।
বাড়ির গেটে গিয়ে কেয়ারটেকার শাজাহানের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে প্রথমে তিনি কথা বলতে অস্বস্তি বোধ করেন। পরে তিনি জানান, বাড়িটি নির্মাণের পর থেকেই তিনি এর দায়িত্বে রয়েছেন। বাড়িটির নিচতলায় তিনি থাকেন। লতিফ সিদ্দিকী দুই-তিন মাস পর পর এই বাড়িতে আসতেন এবং রাত্রিযাপন করতেন দোতলায়। আর নেতা-কর্মীদের সঙ্গে আলোচনা করতেন নিচতলায়। বেশির ভাগ সময় মন্ত্রী একাই সেখানে থাকতেন। মাঝেমধ্যে তাঁর স্ত্রী এলে তিনিও থাকতেন।
শাজাহান জানান, প্রায় প্রতিবছর ঈদের আগের রাতে লতিফ সিদ্দিকী কালিহাতী আসতেন। তাঁর গ্রামের বাড়ি ছাতীহাটীতে ঈদের নামাজ পড়ে এই বাড়িতে আসতেন। নেতা-কর্মীদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করে রাতেই আবার ঢাকায় চলে যেতেন। এবারও ঈদের আগে তাঁর এখানে আসার কথা ছিল। কোরবানির ঈদে এখানে ও গ্রামের বাড়ি ছাতীহাটীতে প্রতিবছর গরু কোরবানি দিতেন।
বাড়ি করার সময় বিআরডিবির জমি দখল করা হয়েছে কি না জানতে চাইলে শাজাহান বলেন, ‘মন্ত্রী কোনো জমি দখল করেননি। তিনি পুরো জমি কিনে নিয়েছেন।’ তবে কত টাকা দিয়ে কিনেছেন তা বলতে পারেনি বাড়ির কেয়ারটেকার।
লতিফ সিদ্দিকীর ইসলাম ধর্মবিরোধী বক্তব্য দেওয়ার অভিযোগ প্রসঙ্গে শাজাহান বলেন, ‘শুনতেছি তিনি নাকি ধর্মবিরোধী কথা বলেছেন। কিন্তু তাঁর মতো মানুষ এ রকম কথা বলতে পারেন না।’
এদিকে আবদুল লতিফ সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে জমি দখলের অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা বলে দাবি করেছেন বিআরডিবির বর্তমান চেয়ারম্যান আফাজ উদ্দিন। তিনি বলেন, ‘মন্ত্রী (লতিফ সিদ্দিকী) বিআরডিবির কোনো জমি দখল করেননি, বিআরডিবির জমির পাশে অন্য জমি কিনে বাড়ি তৈরি করেছেন।’
এ প্রসঙ্গে কালিহাতী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখব।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs