সর্বশেষ সংবাদ :

‘ক্ষমতা ধরে রাখতে সহিংসতা শুরু করেছে সরকার’

Share Button
1411310009
রিপোর্টঃ-মোঃ সফিকুর রহমান সেলিম
ঢাকা, ২৪ ডিসেম্বর, ২০১৪।
সরকারকে বেআইনি ও অবৈধ আখ্যা দিয়ে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, অনৈতিক ও অবৈধ সরকার তাদের বেআইনী ক্ষমতা ধরে রাখতে সহিংসতা শুরু করেছে। তারা বিনা উস্কানিতে বিরোধীদের ওপর হামলা শুরু করেছে। বুধবার বিকেলে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জরুরি সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। দুর্নীতির দুই মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার আদালতে হাজিরা দেওয়াকে কেন্দ্র করে বুধবার সকাল থেকে বকশীবাজার এলাকায় বিএনপি নেতাকর্মীরা জড়ো হয়ে মিছিল বের করার চেষ্টা করলে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা তাদের ওপর হামলা চালায়। এতে উভয় পক্ষে সংঘর্ষ বেশ কয়েকজন আহত হন। এর পরিপ্রেক্ষিতে প্রতিক্রিয়া জানাতে বিএনপি এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। চেয়ারপার্সনের গাড়িবহর ও নেতাকর্মীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে দলটি আগামীকাল ঢাকা মহানগরসহ দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা সদরে বিক্ষোভের ডাক দিয়েছে।সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব অভিযোগ করেন, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে সঙ্গে নিয়ে সরকার জনগণের ওপর নির্যাতন চালাচ্ছে। আদালতে যাওয়ার পথে খালেদা জিযার গাড়ি বহরে হামলার মধ্যদিয়ে সরকার সহিংসতা শুরু করেছে। তিনি জানান, ছাত্র-যুবলীগ ও পুলিশের হামলায় দলটির শতাধিক নেতাকর্মী গুরুতর আহত হয়েছেন। যাদের বেশ কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কানজন। এছাড়া আরো ৬০০জনের বেশী আহত হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।খালেদা জিয়ার গাড়ি বহরে হামলার ঘটনা পরিকল্পিত দাবি করে মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা গণতন্ত্র ও ভোটের অধিকার ফিরে পাওয়ার জন্য সংগ্রাম করছি। আন্দোলন নস্যাৎ করতে সরকারের পরিকল্পনার অংশ হিসেবে খালেদা জিয়ার গাড়ি বহরে হামলা হয়েছে। এতে ৬ শতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। সরকারকে এ ধরনের দমননীতি বন্ধ করতে হবে। অন্যথায় যে কোনো পরিস্থিতির জন্য সরকারকেই দায় বহন করতে হবে বলে হুঁশিয়ারি দেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, গত কয়েকদিন ধরে আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ ও অবৈধ সরকারের মন্ত্রীরা বিএনপির আন্দোলন দমনে হুমকি ধমকি দিচ্ছেন। ২০ দলের গাজীপুরের জনসভাস্থলে গতকাল ছাত্রলীগ আক্রমণ চালায়। সেখানে তারা ব্যাপক গুলি চালায়। প্রায় ৫ ট্রাক পুলিশ নিয়ে তারা সেখানে হামলা করে। তিনি অভিযোগ করেন আজ দুপুরে গাজীপুরে ছাত্রদলের ছেলেদের মিছিলে যুবলীগের ছেলেরা হামলা চালায়। গাজীপুরের এসপি নিজে প্রেসক্লাবে গিয়ে বলেছেন- খালেদা জিয়ার জনসভা করতে দেয়া হবে না।বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বলেন, দেশের আজকের এ সমস্যা ২০ দলের সমস্যা নয়, গোটা জাতির সমস্যা। দীর্ঘদিন আমরা অভিযোগ করে এসেছি আমাদের সভা-সমাবেশ করতে দেয়া হয় না। আমরা ২৭ ডিসেম্বর গাজীপুরে জনসভার অনুমতি চেয়েছি। তারপর হঠাৎ করে অবৈধ সরকারের প্রধানমন্ত্রী গাজীপুরের কাশিমপুর গেলেন। তিনি সেখান থেকে ফিরে আসার পর তাণ্ডব শুরু হয়েছে।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs