সর্বশেষ সংবাদ :

জনতার মঞ্চ কি জায়েজ ছিল ! সমালোচনার ঝড় তুলেছে সারাদেশে

Share Button

hasina-8-e1414064391157

রিপোর্টঃ-মোঃ সফিকুর রহমান সেলিম
ঢাকা, ০৭ ডিসেম্বর, ২০১৪।

বৃহস্পতিবার রাতে বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার সাথে অবসরপ্রাপ্ত ও বর্তমান আমালাদের আলোচনা, সমালোচনার ঝড় তুলেছে সারাদেশে। সৃষ্টি হয়েছে বিতর্ক আমলাদের নিয়ে। একজন সাবেক সচিব নিউএজ পত্রিকার একজন সাংবাদিককে এ কথা নিশ্চিত করেন যে, খালেদা জিয়ার সাথে তাদের কথা হয়েছিল, হচ্ছে এবং হবেও। সরকারি কিংবা সরকার সংশ্লিষ্ট যে কারো কোন রাজনৈতিক দলের সাথে যোগাযোগ, সম্পর্ক স্থাপন এবং আলোচনা করা সরকারি চাকুরি নীতিমালার পরিপন্থী। বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক চেয়েছিলেন আলোচনায় সরকারি আমলাদের উপস্থিতি অস্বীকার করতে কিন্তু দলের নেত্রীর প্রধান সহকারি গণমাধ্যমকে বলেন, প্রায় দেড় শতাধিক অবসরপ্রাপ্ত ও দায়িত্বরত আমলারা আলোচনায় অংশগ্রহণ করে। বিএনপি নেতৃবৃন্দ চেয়েছিলেন কয়েক মাস এ আলোচনার খবর গোপন করে রাখতে।

ইতিপূর্বে ২০০৬ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় জ্বালানি উপদেষ্টা মাহমুদুর রহমান তার উত্তরার নিজ বাস ভবনে ৩০ জন অবসরপ্রাপ্ত এবং সরকারি আমলাদের সাথে গোপন বৈঠক তৎকালীন সময়ে বেশ সমালোচিত হয়েছিল সর্বমহলে এমনকি মিডিয়াতেও। শোনা যাচ্ছে, অবসরপ্রাপ্ত, কর্মরত এবং ও এসডিপ্রাপ্তরা সব দিক বিবেচনা করে কেউ কেউ রাজনৈতিক বিবেচনায় আলোচনায় যোগ দেয়। কারো কারো মাঝে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছিল। তারা অবশ্যই ভাবছিল সরকার বর্তমান সময়ে জনপ্রিয়তার অভাবে গভীর সঙ্কট বোধ করছে যা একেবারে উল্লেখযোগ্য। এর আগেও গত ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের আগে কর্মরত আমলারা কয়েক দফায় বিএনপি নেত্রীর সাথে যোগাযোগ করেছিল। অন্যদিকে গণভবনে শেখ হাসিনার আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নে প্রধানমন্ত্রীর উত্তর ছিল হাস্যকর। তিনি বলেছিলেন, পূর্ব অনুমতি ব্যতিত কোন সরকারি কর্মকর্তা বা আমলাদের পক্ষে কোন রাজনৈতিক দলের সাথে আলোচনা করা সম্পূর্ণ সংবিধান পরিপন্থী। যারা বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার সাথে যোগাযোগ করেছেন তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিবেন বলেও তিনি বলেন। শেখ হাসিনার নিজের পাপ নিজেকে কুঁড়ে কুঁড়ে খাচ্ছে। যিনি জনতার মঞ্চ তৈরি করেছিলেন একদিন তিনি নিজের হাতে আজ তার সুফল বয়ে বেড়াবেন, এতে অবাক হওয়ার কিছু নেই। শেখ হাসিনার রাস্তা এখন দ্বিমুখী হয়ে আছে এর কোন একদিকে যেতেই হবে। হয়ত সরকার আইন এবং সংবিধান মেনে কঠোর হাতে দমন করবে আন্দোলনকারীদের। আর সংবিধান না মানলে নাকে খৎ দিতে হবে।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs