সর্বশেষ সংবাদ :

বাঁধভাঙ্গা উচ্ছ্বাসে জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড বিজয়ীরা

Share Button

রিপোর্টার:-দৈনিক মুক্তকন্ঠ,
১৮ নভেম্বর ২০২০। সময : ০৮.৩৫.PM

বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ডপ্রাপ্তরা। পুরস্কারপ্রাপ্তরা তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন এবং একই সাথে অনুভূতি প্রকাশ করেন। জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড-২০২০ তাদের কাজের একটা বড় স্বীকৃতি, এটি তাদের কাজকে আরো অগ্রগামী করবে বলে জানান তারা।

দেশ ও সমাজের উন্নয়নে কাজ করার জন্য এসব তরুণরা দেশের বিভিন্ন প্রান্তে নিজ উদ্যোগে সংগঠন গড়ে তুলেছেন। আর জয় বাংলা ইয়ুথের এই স্বীকৃতি সামাজিকভাবে তাদেরকে শক্ত অবস্থানে দাঁড় করাবে বলে অভিমত ব্যক্ত করেন তারা।

জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন রায়হানুল হক। দি সিক্স সেন্স বা ষষ্ঠ ইন্দ্রিয় নামে একটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন তিনি। দেশের পশ্চিমাঞ্চলের জেলা রাজশাহীতে গড়ে তুলেছেন এই প্রতিষ্ঠান।

যৌন শিক্ষা ও যৌন হয়রানি থেকে শিশুদের মধ্যে সচেতনতা তৈরি করতে চারজন যুবক মিলে এ সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা করেন। এটির সহ-প্রতিষ্ঠা হিসাবে আছেন মো. রায়হানুল হক।

জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড পাওয়ার পর এক প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেন, প্রতিটি অনুভূতিই কাজের আগ্রহ বাড়িয়ে দেয়। এই স্বীকৃতি সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে অনুপ্রেরণা যোগাবে। এছাড়া সমাজে গ্রহণযোগ্যতা বাড়াবে।

সকল শিশুর সুরক্ষিত শৈশব নিশ্চিত হোক এমন আশাবাদ ব্যক্ত করে তিনি আরো বলেন, ষষ্ঠ ইন্দ্রিয় মনে করে এই স্বীকৃতি তাদের কাজে আরো দায়িত্ববোধ বাড়াবে। তারা এমন একটি জয় বাংলার স্বপ্ন দেখেন যেখানে সকল শিশুর সুরক্ষিত শৈশব নিশ্চিত হবে।

রাঙ্গামাটিতে ২০১৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়া সংগঠন উন্মেষ বঞ্চিত পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। শিক্ষার সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত শিশুরা যাতে সঠিকভাবে শিক্ষাগ্রহণ করতে পারে সেজন্য কাজ করে যাচ্ছে এটি।

জয় বাংলা অ্যাওয়ার্ড পাওয়ার পর প্রতিষ্ঠানটির কর্নধর বিটান চাকমা বলেন, জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড শুধুমাত্র উন্মেষ পরিবার নয়, এটি চট্টগ্রামের জন্য বড় একটি প্রাপ্তি।

জয় বাংলা মানেই অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ উল্লেখ করে তিনি বলেন, আশা করি এই প্রাপ্তি স্বউদ্যোগে ও সরকারি পর্যায়ে কাজ করার পথকে আরো সুগম করবে। পার্বত্য এলাকা বিশেষ একটি স্বতন্ত্র এলাকা বলা হয়।

গত দুই বছর দেশি বলারস উইমেনস ডেভেলপমেন্ট সংগঠনের মাধ্যমে শত শত মেয়েদেরকে বাস্কেট বল খেলার সুযোগ তৈরি করে দিয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন আশরিন মৃধা।

আশরিন মৃধা বলেন, আজকের এই সম্মাননা সেই সকল মেয়েদের জন্য ডেডিকেটেড যারা তাদের খেলাধুলার স্বপ্ন ও অধিকারের জন্য লড়াই করে আসছে বছরের পর বছর। প্রতিষ্ঠানটিতে খেলাধুলার পাশাপাশি যাতে মানসিক বিকাশ ঘটে, মেয়েদের জন্য এমন সুযোগ করে দেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

করোনা মহামারিকালে মানুষের প্রয়োজনে জরুরি চিকিৎসা সেবা ও রক্ত সরবরাহে কাজ করে গেছে ব্লাডমেন হেলথ কেয়ার। ঢাকা ভিত্তিক এই সংগঠনটির পরিচালনায় রয়েছেন ডা. মনজুর হোসেন চৌধুরী।

জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড পাওয়ার পর এক প্রতিক্রিয়ায় এই অ্যাওয়ার্ডকে সামনে রেখে দেশের জন্য কাজ করে যাওয়া ও মানুষের জন্য কাজ করে যাওয়ার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন ডা. মনজুর হোসেন চৌধুরী।

তিনি বলেন, আজকের তরুণরা আগামীর বাংলাদেশ গড়বে এবং তরুণদের কাঁধে ভর করেই গড়বে সোনার বাংলাদেশ।

বাংলাদেশে দক্ষিণাঞ্চলের জেলা নোয়াখালীতে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ নিশ্চিত করা ও দুর্যোগ পরবর্তী সময়ে মানুষকে সহযোগিতায় কাজ করছে ফুটস্টেপ বাংলাদেশ।

প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনায় রয়েছেন শাহ্‌ রাফায়েত চৌধুরী। তিনি বলেন, জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ডের মাধ্যমে আরো তরুণ অনুপ্রেরিত হবে এবং তাদের সাথে কাজে যুক্ত হবে।

সংগঠন এই অ্যাওয়ার্ডের মাধ্যমে দেশ উন্নয়ন ও মানুষের জন্য আরো কাজ করে যেতে পারবে মনে করেন শাহ্‌ রাফায়েত চৌধুরী।

উল্লেখ্য, দেশ ও সমাজের উন্নয়নের জন্য কাজ করে যাওয়া তরুণদের ৩০ সংগঠনের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড-২০২০। গতকাল মঙ্গলবার রাত ৮টায় ইয়াং বাংলা আয়োজিত ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে এই ৩০ সংগঠনকে বিজয়ী হিসেবে ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs