সর্বশেষ সংবাদ :

কুমিল্লার হোমনার আলোচিত মাদ্রাসা ছাত্রী ধর্ষণকারী সুমন সরকার গ্রেফতার

Share Button

রিপোর্ট:-দৈনিক মুক্তকন্ঠ,
১০ মে, ২০১৯। সময়: ১১.৩০PM.

কুমিল্লার হোমনায় দিনের বেলায় রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে নবম শ্রেণীর এক মাদ্রাসার ছাত্রীকে ধর্ষণকারী ৮ মামলার আসামী সুমন সরকার(২৯) কে গ্রেফতার করেছে হোমনা থানা পুলিশ। সুমন সরকার উপজেলা ১নং মাথাভাঙ্গা ইউনিয়নের দ্বাড়িগাও গ্রামের রেজাউল করিম ওরফে রাজা মিয়ার ছেলে।
আজ শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে জেলার মেঘনা উপজেলার মুগারচর এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।
হোমনা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সৈয়দ মোঃ ফজলে রাব্বী জানান, ৩ মে হোমনা ইসলামীয়া দাখিল মাদ্রাসার নবম শ্রেণীর ছাত্রীকে এলাকার এক কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী গণ ধর্ষণ সহ ৮ মামলার আসামী জমিতে তার বাবাকে খাবার দিয়ে ফেরার পথে সকাল ১১ টায় রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে পাশের কাঠ বাগানে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।
এঘটনায় সুমন সরকারকে আসামী করে হোমনা থানায় মামলা দায়ের করেন নির্যাতিতা ছাত্রীর পিতা। ঘটনার পর থেকেই সে পলাতক ছিলো।
গোপন খবরের ভিত্তিতে শুক্রবার সকাল ৯ টার দিকে অভিযান চালিয়ে সুমনকে গ্রেফতার করা হয়। আগামী কাল তাকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরন করা হবে। এদিকে সুমন সরকার গ্রেফতারের খবরে এলাকায় সস্তি ফিরে আসে। সবাই তার সর্বোচ্চ শাস্তি দাবী করছে।
জানাগেছে আলোচিত মাদ্রাসা ছাত্রীর ধর্ষণ মামলার আসামীর রাজনৈনিক পরিচয় নিয়ে ,সোস্যাল মিডিয়ায় নেতিবাচক সংবাদ প্রচারিত হলে স্থানীয় সংসদ সদস্য সেলিমা আহমাদ সিআইপি পবিত্র মক্কা শরীফ থেকে এক ভিডিও বার্তায় ধর্ষক যে দলের হউক না কেন তাকে দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার জন্য আইনশৃংখলা বাহিনীকে নির্দেশ দেন। কিন্তু সুমন পলাতক থাকায় ৪ দিনেও তাকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। এনিয়ে এলাকায় তীব্র ক্ষোভের সৃষ্ট হয়। পরবর্তীতে ধর্ষক সুমনের ফাঁসির দাবীতে মানববন্ধন করে এলাকাবাসি। নব নির্বাচিত উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রেহানা বেগস, ভাইস চেয়ারম্যান মহাসিন সরকার ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাছিমা আক্তার রীনা সহ দলের সিনিয়র নেতৃবৃন্দও মানববন্ধনে অংশ গ্রহন করেন। পরবর্তীতে ধর্ষক সুমনের ছোট ভাই সোহেলকে থানা নিয়ে আসলে মানববন্ধনে অংশগ্রহন কারী কয়েকজন স্থানীয় নেতা তাকে ছাড়াতে থানায় গেছেন এমন অভিযোগে দলের মধ্যে ব্যাপক সমালোচনা শুরু হয়। কিন্ত স্থানীয় সংসদ সদস্যের জিরোট্রলারেন্স নীতির নিকট স্থানীয় নেতারা পরাজিত হয়েছেন। তিনি প্রমান করেছেন সন্ত্রাসীদের কোন দল নাই। সন্ত্রাসী যে দলের হউক না কেন সন্ত্রাসীদের আস্তানা হোমনা তিতাসে থাকবেনা।
সবাইকে মনে রাখতে হবে, মসজিদের মুসল্লি জুতা চোর নয়। জুতা চোর মুসল্লি সেজে মসজিদে ঢুকে জুতা চুরি করে। তেমন সন্ত্রাসীরা তাদের প্রয়োজনে দলে ঢুকে দলের বদনাম করে।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs