সর্বশেষ সংবাদ :

কুমিল্লা হোমনায় মাদ্রাসার ছাত্রী ধর্ষণের শিকার

Share Button

 

রিপোর্ট:-দৈনিক মুক্তকন্ঠ,
০৫ মে, ২০১৯। ১০.৩০.PM.

কুমিল্লার হোমনায় সুমুন সরকার(২৯) নামের এক কুলাঙ্গার দিনের বেলায় রাস্তা থেকে জবরদস্তি তুলে নিয়ে নবম শ্রেণীর এক মাদ্রাসা ছাত্রীকে কাঠ বাগানে নিয়ে ধর্ষণ করেছে। সে হোমনা উপজেলার দাড়িগাও গ্রামের রেজাউল করিম ওরফে রাজা মিয়ার ছেলে। এই কুলাঙ্গার হোমনা উপজেলার মাটিকে কলঙ্কিত করেছে। ইতোমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে এ জগন্যতম, নেক্কার জনক ঘটনা প্রকাশিত হওয়ায় হোমনা বাসির লজ্জায় মাথাকাটা যাবার জোগার। মিডিয়ার কল্যাণে এবং এলাকাবাসি সূত্রে জানতে পারলাম সুমন সরকার একজন চিহৃিত মাদক ব্যবসায়ী ও এলাকার ত্রাস। হোমনা উপজেলার দাড়িগাঁও গ্রামেই তার বাস হলেও সে মাদক সম্রাট হিসেবে পুরো জেলা নিয়ন্ত্রন করে । তার রয়েছে একটি বিশাল বাহিনী। এই বদমায়েশ কুলাঙ্গার সুমন ও তার বাহিনীর অত্যাচারে দাড়িগাঁও,ভংগার ও গোয়ারী ভাঙ্গার নারী ও শিশুরা তাদের স্বাভাবিক চলাফেরা করতে ভয় পাচ্ছে। জানা যায় তার বিরুদ্ধে থানায় মারামারি,নারী নির্যাতন,মাদক ও গণ ধর্ষণের ৮ টি মামলা রয়েছে। সরজমিনে গিয়ে জানাগেছে এমন অনেক ঘটনা সে ঘটিয়েছে সেই ঘটনার কোন মামলা মোকদমা করতে সাহস পায়নি।কেহ সাক্ষীদিতে ও ভয় পায়। দাড়িগাও টেকের বাজারে আশ্রায়ন প্রকল্পের কোন নারী তার হাত থেকে রেহাই পায় নাই। যার কোন রেকট কারোর জানা নেই। শুধু মাত্র ভুক্তভোগীরাই জানে। আশ্রায়ন প্রকল্পের কোন মহিলা পুরুষ প্রথমে মুখ খুলতে না চাইলেও পরে নাম পরিচয় গোপন রাখার শর্তে একাধিক মহিলা জানান এ বদমাইশ এ গুচ্ছ গ্রামে অনেক ঘটনা ঘটিয়ে মোবাইলে ভিডিও করে ব্লাকমেইল করে তাদের দিয়ে মাদক ব্যবসা করছে। সে এ গুচ্ছগ্রামের গডফাদার।
জানা গেছে গত শুক্রবার মাদ্রাসা ছাত্রীটি ধর্ষিত হওয়ার পর মেয়েটির পরিবার থানায় মামলা করতে চাইলে ধর্ষক সুমন ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা ধর্ষিতার পরিবারকে খুন করার হুমকি দিয়েছিল। বিষয়টি মিডিয়ায় জানা জানি হলে বাধ্য হয়ে ভাগ্যিস মেয়টির বাবা থানায় মামলা করে।না হলে এ ঘটনাও কেহ জানতে পরতো না। এদিকে মেয়টির বক্তব্য সংরক্ষন করা এবং স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়েছে। কিন্ত ধর্ষিতা মেয়েটির পরিবার ধর্ষক সুমন বাহিনীর ভয়ে ভীত, সন্ত্রস্ত ও আতংকিত। এমতাবস্থায় প্রশাসনের উচিৎ দ্রুত ধর্ষককে আইনের আওতায় আনা। এ বিষয়ে রাজনীতিবীদ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তি, মোড়লদের ভূমিকা কি তা স্পষ্ট হওয়া উচিৎ।
বর্তমানে হোমনা-তিতাসের আস্থা, বিশ্বাস ও ভরসার ব্যক্তি মাননীয় এম পি “সেলিমা আহমাদ মেরী” আপা। এ গরীব আসহায় ধর্ষিত মেয়েটি সুবিচার প্রাপ্তিতে মেরী আপার সুদৃষ্টি কামনা করছি। আজকে স্বাধীনতার ৪৮ বৎসর পর হোমনা তিতাসে মুক্তিযোদ্ধের পক্ষের শক্তি ক্ষমতায়। কোন কুলাঙ্গারের কারনে এ অর্জন ম্রান হতে দেয়া যাবে না।
আমার বিশ্বাস মাননীয় এম পি সেলিমা আহমাদ মেরী আপা হোমনা ও তিতাসের মাটিতে কোন ধর্ষকের স্থান যাতে পায় তিনি সেই ব্যবস্থাই করবেন। এলাকার জনগন আইনের শাসন চায়, ধর্ষকের বিচার চায়।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs