সর্বশেষ সংবাদ :

নুসরাত হত্যা: সোনাগাজী উপজেলা আ. লীগ সভাপতি রুহুল আটক

Share Button

রিপোর্ট:-দৈনিক মুক্তকন্ঠ,
১৯ এপ্রিল, ২০১৯। সময়: ১১.৩০PM.

ফেনীর মাদরাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যার ঘটনায় সোনাগাজী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রুহুল আমিনকে আটক করেছে পিবিআই।

পিবিআই প্রধান বনজকুমার মজুমদার জানান, সম্পৃক্ততার অভিযোগ ওঠায় শুক্রবার বিকেলে তাকে তার সোনাগাজীর বাড়ি থেকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে।

তবে তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হবে কি না তা তিনি বলেননি।

নুসরাতকে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় স্থানীয় রাজনীতিরও প্রভাব রয়েছে বলে এই ঘটনায় পুলিশের গাফিলতি তদন্তে গঠিত কমিটির প্রধান ডিআইজি এস এম রুহুল আমিন অভিমত দেওয়ার পরদিন স্থানীয় আওয়ামী লীগের সভাপতিকে ধরা হল।

আওয়ামী লীগ নেতা রুহুল আমিন সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার সদ্য সাবেক ব্যবস্থাপনা কমিটির সহ-সভাপতি।

নুসরাত ছিলেন ওই মাদ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী। গত ৬ এপ্রিল আরবি প্রথম পত্র পরীক্ষা দিতে গেলে তার গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় কয়েকজন। এ ঘটনায় দগ্ধ নুসরাত ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১০ এপ্রিল মারা যান।

ঢাকার হাসপাতালে অগ্নিদগ্ধ নুসরাত; পাঁচ দিন পর মৃত্যু হয় তার

ঢাকার হাসপাতালে অগ্নিদগ্ধ নুসরাত; পাঁচ দিন পর মৃত্যু হয় তার

মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলার বিরুদ্ধে নুসরাতের পরিবারের দায়ের করা মামলা তুলে না নেওয়ায় অধ্যক্ষর লোকজন তার গায়ে আগুন দেয় বলে পরিবারের অভিযোগ।এসব ঘটনায় রুহুল আমিনসহ কমিটির কয়েকজনের বিরুদ্ধে সম্পৃক্ততার অভিযোগ উঠেছে।

একই অভিযোগে এর আগে সোনাগাজী পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও সোনাগাজী পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাকসুদ আলমকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

গণমাধ্যমে এসেছে, নুসরাতের গায়ে আগুন দেওয়ার পর শাহাদাত হোসেন শামীম ফোন করে রুহুল আমিনকে ঘটনা জানিয়েছিলেন।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs