সর্বশেষ সংবাদ :

কুমিল্লায় ২০ দলীয় জোটের জনসভা সফল করতে ব্যাপক প্রস্তুতি

Share Button

Khaleda-Zia-001-600x400

রিপোর্টঃ-মোঃ সফিকুর রহমান সেলিম ঢাকা, ২৪ নভেম্বর ২০১৪।

আগামী ২৯ নভেম্বর শনিবার কুমিল্লায় ২০ দলীয় জোটের জনসভা। সাবেক প্রধানমন্ত্রী বিএনপি চেয়ারপার্সন ২০ দলীয় জোট নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া এতে প্রধান অতিথি থাকবেন। ২০ দলীয় জোটের এ শীর্ষ নেত্রীর জনসভাটিকে মহাসমুদ্রে রূপ দেয়ার জন্য ৫ লক্ষ লোকের সমাগম করার ব্যাপক পরিকল্পনা গ্রহন করছেন বিএনপি-জামায়াত নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট। এ জন্য দীর্ঘ দিনের গ্রুপিং দ্বন্ধ ভুলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করছেন কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হাজী আমিনুর রশীদ ইয়াছিন ও যুগ্ম সম্পাদক সিটি মেয়র মনিরুল হক সাক্কু। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খানসহ কেন্দ্রীয় নেতারা কুমিল্লায় এসে সর্বশেষ প্রস্তুতি নিয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে দফায় দফায় মিটিং করছেন।

জানা যায়, ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর গত ৬ বছরের মধ্যে এই প্রথম জনসভা করার জন্য কুমিল্লা আসছেন বেগম খালেদা জিয়া। এই জনসভাটিকে কুমিল্লার ইতিহাসে স্মরণ কালের সর্ববৃহৎ জনসভা করার জন্য ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহন করেছে বিএনপি-জামায়াতসহ ২০ দলীয় জোটের অন্যান্য সংগঠন গুলো। এরই অংশ হিসেবে ইতিমধ্যে সকল ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধ হয়েছেন দীর্ঘ দিন ধরে গ্রুপিংয়ে লিপ্ত থাকা হাজী ইয়াছিন ও মেয়র সাক্কু গ্রুপ। এই দুই নেতার ঐক্যের ঢেউ পড়েছে জেলা দেিনর অন্যান্য উপজেলার মধ্যেও। ইতিমধ্যে বুড়িচং, ব্রাহ্মনপাড়া, চৌদ্দগ্রাম ও নাঙ্গলকোটে বিএনপি সকল ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। নগর থেকে তৃণমূল পর্যায় পর্যন্ত জনসভাকে সফল করার জন্য প্রচার প্রচারণা চালানো হচেছ ব্যাপক ভাবে। নগরীর ধর্মসাগরপারস্থ জেলা বিএনপির মিডিয়া সেন্টারে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত দফায় দফায় চলছে মিটিং। কুমিল্লা টাউন হল মাঠে অনুষ্ঠিতব্য এ্ই জনসভায় কুমিল্লা দক্ষিণ ও উত্তর জেলা মিলিয়ে কমপে ৫ লক্ষ লোক সমাগমের টার্গেট নিয়েছে জেলা দক্ষিণও উত্তরের ২০ দলীয় জোট।

ইতিমধ্যে মূল জনসভার বাহিরে নগরীর ৮টি স্থানে বড় পর্দা ও ২৬২ টি মাইক টানানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে। যা ইতিপূর্বে কুমিল্লার কোন জনসভায় আর হয়নি। দাউদকান্দি ব্রিজ থেকে কুমিল্লা নগরীর বিভিন্ন পয়েন্ট পর্যন্ত প্রায় সহস্রাধিক তোরন নির্মানের সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানা গেছে। তবে বড় পর্দা, মাইক ও তোড়নের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক মিয়া। কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি ও কেন্দ্রীয় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বেগম রাবেয়া চৌধুরী বলেছেন, কুমিল্লার মহাসমাবেশ থেকেই সরকারের পতনের আন্দোলন শুরু হবে। এ জন্য আমরা মহাসমাবেশ সফল করার জন্য সর্বোচ্ছ গুরুত্ব দিচ্ছি। কুমিল্লা  দক্ষিণ  জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হাজী আমিনুর রশীদ ইয়াছিন বলেছেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার এই জনসভায় যদিও আমরা টার্গেট করেছি ৫ লক্ষ লোক হবে। কিন্তু বাস্তবে এর চেয়ে আরো বেশী লোক হবে। এজন্য আমরা বড় পর্দার ব্যবস্থা আরো বেশী করতে যাচ্ছি। জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক ও কুমিল্লা সিটি মেয়র মনিরুল হক সাক্কু বলেছেন, কুমিল্লার মাটি ও মানুষ আপোষহীন নেত্রীকে স্বাগত জানানোর অপেক্ষায় আছেন। কুমিল্লার মহাসমাবেশ হবে দেশের যে কোন স্থানের মহাসমাবেশের চেয়ে অনেক বেশী বড়। কুমিল্লা মহনগর জামায়াতের আমির কাজী দ্বীন মোহাম্মদ বলেছেন ২০ দলীয় জোটের জনসভায় বাকশালী সরকারকে বিদায় জানাতে ব্যাপক মানুষের সমাগম হবে। দেশের মানুষ শেখ হাসিনার সরকারকে আর মতায় দেখতে চায় না। কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা জামায়াতের আমির আব্দুস সাত্তার বলেছেন জোটের জনসভায় উল্লেখ যোগ্য উপস্থিতি থাকবে জামায়াত-শিবিরের। কেন্দ্রিয় নেতৃবৃন্দের মুক্তির দাবিতে সমাবেশে যোগদিতে জনগন উদগ্রিব হয়ে আছে।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs