সর্বশেষ সংবাদ :

সড়কে লাঠি নিয়ে ট্রাক ঘিরে টাকা আদায়

Share Button
10606591_849129661778665_9078226593750510115_n
রিপোর্টারঃ-মোঃ সফিকুর রহমান সেলিম,ঢাকা
০৩ অক্টোবর ২০১৪
সোমবার রাত সাড়ে ৯টা। রাজশাহী নগরীর পশ্চিমের প্রবেশমুখ কাশিয়াডাঙ্গা মোড়। চাঁপাইনবাবগঞ্জের দিক থেকে দুটি গরুবাহী ট্রাক মোড়ে আসামাত্রই দুদিক থেকে বাঁশের লাঠি হাতে ঘিরে ফেলল আটজন লোক। ট্রাকচালকের হাতে গুঁজে দিল দুটি স্লিপ। চালক পকেট থেকে ৫০ টাকা বের করে সামনে দাঁড়ানো সাদা গেঞ্জি পরা একজনের হাতে ধরিয়ে দিয়ে স্টিয়ারিংয়ে এ হাত দিলেন। পরের ট্রাকটি থেকেও একই কায়দায় টাকা আদায় করলেন সেই ব্যক্তি। এই লাঠিধারীরা নিজেদের পরিচয় দিলেন মোটর শ্রমিক হিসেবে। তবে কবে কার ট্রাক চালিয়েছেন বলতে পারলেন না। কাশিয়াডাঙ্গা মোড় দিয়ে দিনে-রাতে হাজারখানেক ট্রাক চলে। প্রতিটি থেকে ৫০ টাকা আদায় করা হচ্ছে। ঈদ উপলক্ষে কারও কারও কাছ থেকে একটু বেশি নেয়া হচ্ছে। এভাবে ট্রাকের গতিরোধ করে প্রকাশ্যে চাঁদা আদায়ের ঘটনায় ক্ষুব্ধ হলেও ট্রাকচালক বা মালিকরা ভাংচুর বা অন্য ক্ষতির আশঙ্কায় কিছু বলতে পারছেন না। চাঁদা পরিশোধ শেষে কথা হল ট্রাকচালক মনিরের সঙ্গে। নাটোরের কাঁচিকাটার এই ট্রাকের চালক বলেন, রাজশাহীতে ঢুকলেই মহাসড়কের পুঠিয়াতে চাঁদা দিতে হয়। আবার বের হলে কাশিয়াডাঙ্গা মোড়, আর ফিরতি ট্রিপে ফের পুঠিয়াতে চাঁদা গুনতে হয়। সড়কে লাঠি নিয়ে চাঁদাবাজরা ট্রাক ঘিরে ফেলে। না দিলে ট্রাক ভাংচুর করে। ভয়ে চাঁদা দিয়ে তবে পার হয় চালকরা। কাশিয়াডাঙ্গায় সড়কমুখ ঘিরে থাকা জনাবিশেক লাঠিধারী লোক পালাক্রমে তুলছে চাঁদা। এদের কারবার দেখলে যে কারোরই মনে হবে- এরা বোধহয় সরকারি কোনো সংস্থার লোক। এই পয়েন্টে চাঁদা টিমের প্রধান হিসেবে যাকে পাওয়া গেল তার নাম দুলাল। তিনি মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের স্থানীয় নেতা। এই চাঁদা তো মালিকদের কাছ থেকে সরাসরি নেয়া যেতে পারে- রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়ে আদায় কেন- এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নগরীর প্রবেশমুখ হওয়ায় সব ট্রাককে এখানে পাওয়া যায়।
এ ব্যাপারে রাজশাহী জেলা ট্রাক মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সাদরুল ইসলাম বলেন, শ্রমিকরা শুধু বাইরের ট্রাক থেকে চাঁদা তুলছে তা নয়, রাজশাহী জেলার মালিকদের ট্রাক থেকেও চাঁদা নিচ্ছে। এই চাঁদা নিয়ন্ত্রণ করেন মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের নেতারা। আমরা দিতে বাধ্য হচ্ছি। রাজপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মেহেদী হাসান বলেন, রাস্তা ঘিরে চাঁদা তোলা বেআইনি। এটা কারা করছে পুলিশের গোচরে নেই।
চাঁদা তো রাস্তা ঘিরে প্রকাশ্যে তোলা হচ্ছে- এমন প্রশ্নের জবাবে ওসি বলেন, বিষয়টির আমি খোঁজ নিচ্ছি। কাশিয়াডাঙ্গা মোড় ছাড়াও নগরীর আরও কয়েকটি প্রবেশমুখে চাঁদা তোলা হচ্ছে একইভাবে। চেইন রক্ষণের নামে রাজশাহী থেকে ঢাকামুখী কোচগুলো ঢাকা রুটের বাসগুলো রাজশাহী টার্মিনাল ছেড়ে যাওয়ার মুখে চেয়ার-টেবিল বসিয়ে চাঁদা নেয়া হচ্ছে মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের নামে। এসব কিভাবে হচ্ছে জানতে চাইলে রাজশাহী মহানগর পুলিশের কমিশনার মাহবুবুর রহমান বলেন, শ্রমিকরা চাঁদা তুললেও পুলিশ অবহিত নয়। আমি খোঁজ নিয়ে দেখব। ট্রাক ছাড়াও নগরীর বাইরে নওহাটা ব্রিজের ওপর একইভাবে চাঁদা নেয়া হচ্ছে নওগাঁগামী বাস থেকে। চাঁপাইনবাবগঞ্জগামী বাস থেকেও একইভাবে চাঁদা তোলা হচ্ছে বিভিন্ন ইউনিয়নের রশিদ দিয়ে। নগরী থেকে ছেড়ে যাওয়া রংপুর, দিনাজপুর, খুলনা, বরিশাল, কুষ্টিয়া, নাটোর, ময়মনসিংহসহ সব রুটের বাস থেকে চাঁদা তোলা হচ্ছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বাসচালক বলেন, দিনে কত টাকা ওঠে তা ইউনিয়নের কয়েকজন নেতা ছাড়া কেউই জানেন না। টাকাগুলো কীভাবে ব্যয় সেটাও তারাই জানেন।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs