সর্বশেষ সংবাদ :

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরে শোকজ করায় কলেজের অধ্যক্ষ লাঞ্ছিত

Share Button

রিপোর্ট:-দৈনিক মুক্তকন্ঠ,
৩০ জুলাই ২০১৮। সময়: ০৮,২০,PM,

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা বাঞ্ছারামপুর উপজেলা ফরদাবাদ ড.রওশন আলম কলেজের ৬ প্রভাষককে শোকজ করার জেরে শোকজ প্রাপ্ত শিক্ষক দ্বারা অধ্যক্ষ স্বপন কুমার গোস্বামী (৫৭) লাঞ্ছিত হয়েছে। আজ সোমবার সকাল ১১টার দিকে অধ্যক্ষের কক্ষে এ ঘটনা ঘটে। শোকজ প্রাপ্ত শিক্ষকরা হলো -প্রভাষক সফিকুল ইসলাম,ফেরদৌস মিয়া, মোহসিন মোল্লা, জয়নাল আবেদীন,মাসুদুর রহমান,ও সেলিনা বেগম ।
কলেজ অধ্যক্ষ স্বপন কুমার গোস্বামী জানান শোকজ প্রাপ্ত প্রভাষকরা বিধিবহির্ভুতভাবে কলেজের বিভিন্ন কার্য কলাপে জড়িত থাকার অভিযোগে কলেজ পরিচালনা পরিষদের সিদ্ধান্ত মোতাবেক তাদেরকে শোকজ করা হয়েছে । এ শোকজ করাকে কেন্দ্র করে ৬ প্রভাষক আজ সকাল ১১টার দিকে পরিকল্পিত ভাবে রুমে প্রবেশ করে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে উত্তেজিত হয়ে আমাকে লাঞ্ছিত করে এবং মারধর করে আহত করে।
এ ব্যাপারে শোকজকারী প্রভাষক মোঃ জয়নাল আবেদীন মুঠো ফোনে প্রতিবেদক কে জানান অধ্যক্ষকের অভিযোগ সঠিক নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন আগামী ৩১ জুলাই রোজ মঙ্গলবার গর্ভনিং বডির মিটিং এর নোটিশ না দিয়ে নোটিশ প্রাপ্তি স্বীকার বহিতে স্বাক্ষর দেয়ার কথা বললে আমরা নোটিশ না পড়ে স্বাক্ষর দিবনা বলে জানালে অধ্যক্ষ উত্তেজিত হয়ে যান । পরে উভয়ের মধ্যে কথা কাটাকাটি ও ধাক্কাধাক্কি হলে অধ্যক্ষ মাটিতে পড়ে সামান্য ব্যাথা পেয়েছেন । মারধর করার বিষয়টি সঠিক নয় । পরে অধ্যক্ষকে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে ।
এ দিকে এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে দীর্ঘ দিন যাবত কলেজ সভাপতি ড. রওশন আলম ও দাতা সদস্য মেজর (অবঃ) নুরুল আফসারের সাথে কলেজের আভ্যন্তরীণ বিষয় নিয়ে দীর্ঘদিন মনোমালিন্য চলে আসছে। এতে কলেজের প্রভাষকদের মধ্যে গ্রুপিং সৃষ্টি হয়েছে। এর জের হিসেবে এ ঘটনা ঘটেছে বলে অভিজ্ঞমহল মনে করছেন।
কলেজের সভাপতির মুঠো ফোনে ফোন করলে ফোন রিসিভ না করায় তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs