সর্বশেষ সংবাদ :

ধর্মসাগরপাড়ে আড্ডা-মারামারি ও ইভটিজিং রোধে অভিযান

Share Button

রিপোর্ট:-দৈনিক মুক্তকন্ঠ,
১৩ জুলাই ২০১৮। সময়: ০৬,৫০,PM,

কুমিল্লা নগরীর প্রধান বিনোদন কেন্দ্র নগর উদ্যান ও ধর্মসাগরপাড় এলাকায় কলেজ ছাত্র অন্তু হত্যাকান্ডের পর নড়েচড়ে বসেছে প্রশাসন। ধর্মসাগরপাড়ে স্কুল কলেজ ফাঁকি দিয়ে আড্ডা-মারামারি ও ইভটিজিংয়ের ঘটনা বেড়ে যাওয়ায় মোবাইল কোর্টের (ভ্রাম্যমাণ আদালত) ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ধর্মসাগরপাড়ে পরিচালিত মোবাইল কোর্টে বেশ কজন শিক্ষার্থীকে মুচলেকাসহ অর্থদ- প্রদান করা হয়। এছাড়াও খাদ্যের অতিরিক্ত দামের কারণে জরিমানা করা হয়েছে কয়েকটি দোকানকে।

কুমিল্লা জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে কুমিল্লা জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট একেএম সাইফুল আলম ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো: ফজলে এলাহীর সমন্বয়ে ধর্মসাগর পাড় এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হয়। এ সময় স্কুল-কলেজ ফাঁকি দিয়ে সাগর পাড় ও পার্কে বসে আড্ডা দেয়ার অপরাধে ৪ শিক্ষার্থীকে আটক করা হয়। পরে তারা ‘আর এমন হবে না’- শর্তে মুচলেকা দিয়ে ছাড়া পান। এছাড়াও পাবলিক প্লেসে ধুমপান করার অপরাধে ২ দুজন শিক্ষার্থীকে অর্থদ- প্রদান করা হয়।

অপরদিকে খাদ্যদ্রব্যের অতিরিক্ত দাম রাখার কারণে ধর্মসাগরপাড়ে চাচা চটপটিকে ১০ হাজার টাকাসহ অন্য আরো দুটি প্রতিষ্ঠান মিলিয়ে মোট ১১ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে কুমিল্লা জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট একেএম সাইফুল আলম জানান, কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মহোদয়ের সার্বিক নির্দেশনায় আজ (বৃহস্পতিবার) আমরা নগরীর ধর্মসাগরপাড়ে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করি। এসময় কয়েকজন শিক্ষার্থীকে জরিমানা ও সতর্ক করা হয়েছে।

এ ধরনের অভিযান অব্যাহত আছে বলে জানিয়েছেন কুমিল্লা জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো: ফজলে এলাহী। তিনি বলেন, সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলেই আমরা সাথে সাথে ব্যবস্থা নিচ্ছি। ভবিষ্যতেও এ ধারা অব্যাহত থাকবে।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক মো: আবুল ফজল মীর জানান, সম্প্রতি নগরীর ধর্মসাগরপাড়ে শিক্ষার্থীদের আড্ডা, বখাটেদের উৎপাৎ বেড়ে যায়ায় মোবাইল কোর্টের ব্যবস্থা নিয়েছি। তিনি বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান ও অভিভাবকরা সচেতন সচেতন হলে শিক্ষার্থীরা কাশ ফাঁকি দিয়ে আড্ডা দিতে পারবে না। বখাটেপনাও কমে আসবে।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার দিবাগত রাত ৮টায় মোবাইল ফোনে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে নগরীর ধর্মসাগপাড় এলাকায় ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয় অজিতগুহ কলেজ ছাত্র শাহরিয়ার কবির অন্তুকে। সে কুমিল্লা নগরীর রেইসকোর্স এলাকার হুমায়ূন কবিরের পুত্র। কুমিল্লা শহরের স্থানীয় একটি ব্যান্ড দলের ভোকালিস্ট অন্তু ও তার বন্ধু-সহপাঠীরা প্রতিদিন ধর্মসাগর পাড়স্থ ‘অবকাশে’ গান করতো।

এরই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার রাতে তাকে গান শোনার কথা বলে সেখানে মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে যাওয়া হয়। বাসা থেকে বের হয়ে ধর্মসাগর পাড় যাওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই দুর্বৃত্তরা তার পায়ে ও বুকে ছুরিকাঘাত করে। আহত অবস্থায় তার দেহ রাস্তায় পড়ে থাকলে পথচারীরা কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এদিকে কুমিল্লা নগরীর একমাত্র বিনোদন কেন্দ্র নগর উদ্যান সংলগ্ন ধর্মসাগর পাড়ে এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় নগরজুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। এর রহস্য উন্মোচনে তৎপর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs