সর্বশেষ সংবাদ :

ক্ষমতার কাছে নতজানু বিপিএল

Share Button

.

রিপোর্ট:-দৈনিক মুক্তকন্ঠ,
১১ ডিসেম্বর, ২০১৭। সময়:১০.১০.AM,

বিপিএল কমিটি নিজেদের তৈরি নিয়মকানুন উপেক্ষা করে ইতিহাস তৈরি করে ফেলল। বৃষ্টিতে খেলা যেখানে পরিত্যক্ত হওয়ার কথা। নেই রিজার্ভ ডের ব্যবস্থা। যেখানে খেলা না হলে কী হবে তাও স্পষ্ট। সে ম্যাচটি তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্তে পরের দিন অর্থাৎ আজ শিফট করা হয়েছে। আজ গতকালের স্থান থেকেই রংপুর-৫৫/১ (৭ ওভার) শুরু হবে খেলা সন্ধ্যা ৬টায়।

আসলে প্রয়োজন ও ক্ষমতার কাছে নতজানু হলো ক্রিকেট। নতজানু হলো বিসিবি/ বিপিএল কমিটি। নিজেদের স্বার্থ বিবেচনা করে এবং ক্ষমতার কাছে পরাস্ত হয়ে ওই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হলো বিসিবির এ কমিটি।

গতকাল কোয়ালিফায়ার-২ (ফাইনালে ওঠার শেষ ম্যাচ) ম্যাচে টসে জিতে কুমিল্লা প্রথম ব্যাটিং করতে পাঠিয়েছিল রংপুর রাইডার্সকে। খেলার সাত ওভার হওয়ার পর বৃষ্টি হয়। এতে খেলা বন্ধ হয়ে যায়। প্রায় আড়াই ঘণ্টা অপেক্ষা করার পর মাঠে নামে দুই দলের শীর্ষস্থানীয়রা। বিসিবির ও বিপিএলের কর্মকর্তাদেরও শুরু হয় তৎপরতা।

যেহেতু ম্যাচ না হলে কুমিল্লা উঠে যাবে ফাইনালে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই কুমিল্লা নিয়মকানুনের ফাঁকফোকর তুলে ধরতে থাকে। বিশেষ করে অধিনায়ক তামিম ইকবাল নির্ধারিত সময় ৯-৪৫ এর পর আর খেলবেন না বলে জানিয়ে দেন।

মাশরাফি অবশ্য খেলার পক্ষে ছিলেন। কারণ তার দলের অবস্থান ভালো ও রেজাল্ট প্রয়োজন এবং সাত ওভারে সংগ্রহ করেছিল তারা গেইলের উইকেট হারিয়ে ৫৫/১। এ নিয়েই মূলত চলে বিতর্ক।

দীর্ঘক্ষণ চলে ত্রিপক্ষীয় এ আলোচনা। বিপিএল কমিটি উপেক্ষা করতে পারছিল না রংপুরকে। ফলে ওই আলোচনায় অংশ নিতে দেখা গেছে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামালকেও (কুমিল্লার পক্ষ হয়ে)।

খেলা এক সময় শুরুর জন্য পিচ কাভার তুলে ফেলে উইকেটও আবার স্থাপন করা হয়। কিন্তু তামিম নাছোড় বান্দা। সাফ কথা নিয়মের বাইরে গিয়ে কুমিল্লা খেলবে না। পরিশেষে বিপিএল কমিটি সিদ্ধান্ত দিয়ে দেয় যে স্থানে রয়েছে ওই স্থান থেকে আজ আবার শুরু হবে খেলা। এবং আজ যথারীতি অনুষ্ঠিত হবে ম্যাচটি।

বিপিএল আসলে বিনোদনের লিগ! এখানে নিয়মকানুনের থোড়া-ই কেয়ার। এ আসরের একটা বাইলজ রয়েছে। কিন্তু সময়মতো তাও কাজে এলো না। ক্ষমতার দাপটের কাছে বাইলজ উপেক্ষিত হলো।

বিপিএলের বাইলজে রয়েছে এলিমেনিটর ও কোয়ালিফায়ার ম্যাচ যদি বৃষ্টিতে না হতে পারে। তাহলে খেলা পরিত্যক্ত। লিগে যে দলের পয়েন্ট বেশি সে দল পরবর্তী স্তরে উঠে যাবে। কিন্তু কাল সে নিয়মকানুন মানেনি বিপিএল কমিটি।

নিজেদের তৈরি বাইলজ ফেলে দিয়েছেন তারা আঁস্তাকুড়ে। কারণ একটিই। গতকাল কোয়াইলিফায়ার-২ ম্যাচের প্রতিপক্ষ ছিল বসুন্ধরা গ্রুপের পৃষ্ঠপোষকতা করা রংপুর রাইডার ও পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামালের পৃষ্ঠপোষকতা করা কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। বিসিবি কাকে রেখে কাকে কী বলবে। শেষ পর্যন্ত আজকে রিজার্ভ ডে না রাখা হলেও তৈরি হলো রিজার্ভ ডের। এবং অপেক্ষা দ্বিতীয় ফাইনালিস্টের।

উল্লেখ্য, টি-২০ তে অন্তত পাঁচ ওভার করে হলেও রেজাল্ট হয়ে যায়। সে ক্ষেত্রে পাঁচ ওভারে কুমিল্লার টার্গেট ছিল ৬২। ৬ ওভারে ৭২ রান এবং সাত ওভারে জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় টার্গেট দাঁড়িয়ে ছিল কুমিল্লার ৮২ রান। তামিম এটাও মানতে নারাজ। অবশ্য তামিম দেখাচ্ছিলেন বাইলজ কী বলছে সেটা। তার বাইরে তিনি যাবেন না। শেষ পর্যন্ত উপরিউক্ত সিদ্ধান্তের অবতারণা ঘটানো হলো অনেকটা রংপুরকে খুশি রাখার জন্যই! এবং আজ অনুষ্ঠিত হবে বাকি খেলা।

কিন্তু যা হলো তাতে ভেতরে খুশি না হলেও ওপরে কুমিল্লার অধিনায়ককে সন্তোষ প্রকাশ করতে হয়।

আর মাশরাফির দলের তো স্বস্তির একটা রাত পেরুতে পারার কারণ আছে। ঘটনার ঘনঘটা, নাটকীয়তা, মাঠে ছোটাছুটি কর্মকর্তা-মালিকদের, যুক্তি-পাল্টা যুক্তি। কতো কিছু যে দেখা গেল! আগের দিনই মাশরাফি বলেছিলেন, বিপিএল নিজেদের আসর। এখানে বিসিবি চাইলে, বিপিএল কর্তৃপক্ষ চাইলে সেমি ফাইনালের মর্যাদার ম্যাচটিকে বাঁচিয়ে দিতে পারে যদি তা বৃষ্টিতে ভেসে যায়। সেই আইন নিশ্চয়ই আছে বলে জানিয়েছিলেন তাই।

আর এদিন পরের সন্ধ্যায় আবার খেলা হওয়ার সিদ্ধান্ত আসার পর মাশরাফি বললেন, ‘আপনি জানেন, বৃষ্টিতে খেলা ভেসে গেছে। আর এভাবে কোনো দলের বিদায় নেওয়া উচিৎ হতো না। এটা শুধু বোর্ডের ব্যাপার না। এটা ক্রিকেটের ব্যাপার। খেলার মতো পরিবেশ খুব গুরুত্বপূর্ণ কারণ সামনেই আমাদের ট্রাই নেশন সিরিজ রয়েছে। তামিম ইকবালকে অনেক ধন্যবাদ বিপিএলের স্বার্থে এমন একটা সিদ্ধান্ত মেনে নেওয়ার জন্য।’

তামিম অনেক বিরোধিতা করেছেন। শেষে মেনে নিতে বাধ্য হয়েছেন এটাই বাস্তবতা।

কিন্তু মিডিয়ায় খেলার স্বার্থের কথাই টেনে আনতে হয় তাকে, ‘এটা ঠিক আছে। আমাদের জায়গায় অন্য দল হলেও একই কাজ করতো। বিপিএলের স্বার্থেই আমরা আগামীকাল বাকি খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আগামীকাল আমরা ভালো পরিকল্পনা নিয়ে মাঠে নামবো। মাত্র ১২ ওভার বোলিং করতে হবে। যারা ভালো শুরু করতে পারবে, তারাই জিতবে।’ তবে কুমিল্লার মালিক পক্ষের একজন কিন্তু তামিমের সুরে কথা বলেননি।

সিদ্ধান্তটা হওয়ার পরই তার ফেসবুক প্রোফাইল পেজে একটি স্ট্যাটাস ভেসে ওঠে। যার সারমর্ম হলো, তারা আশা করেছিলেন বিপিএলে তাদের ৬টি দলের বিপক্ষে লড়তে হবে! বোঝাতে চাইছেন, মাঠের ছয় দলের বিপক্ষে লড়ে বাইলজে ফাইনালে চলে গেলেও ভিন্ন কোনো শক্তির কাছে হেরে সিদ্ধান্তটি মেনে নিতে বাধ্য হয়েছেন তারা। কিন্তু হজম করতে পারেননি!

রংপুর রাইডার্স
জনসন চার্লস, ক্রিস গেইল, ব্রেন্ডন ম্যাককলাম, মোহাম্মদ মিথুন (উইকেটরক্ষক), রবি বোপারা, নাহিদুল ইসলাম, রুবেল হোসেন, মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), নাজমুল ইসলাম, ইসুরু উদানা, সোহাগ গাজী।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স
তামিম ইকবাল (অধিনায়ক), লিটন দাস (উইকেটরক্ষক), ইমরুল কায়েস, জস বাটলার, মারলন স্যামুয়েলস, শোয়েব মালিক, হাসান আলী, মেহেদী হাসান, গ্রায়েম ক্রেমার, আল-আমিন, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs