সর্বশেষ সংবাদ :

জানাজায় জামায়াতের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী অংশ নেন।

Share Button

47281_un

রিপোর্টঃ-মোঃ সফিকুর রহমান সেলিম ঢাকা, ২৫ অক্টোবর ২০১৪।

জামায়াতের সাবেক আমির গোলাম আযমের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। বেলা সাড়ে তিনটায় মগবাজারে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। এসময় দলীয় নেতাকর্মীরা সেখানে উপস্থিত ছিলেন। এর আগে বাদ যোহর জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে গোলাম আযমের জানাজা সম্পন্ন হয়। জানাজায় ইমামতি করেন ছেলে আবদুল্লাহ হিল আমান আযমী।
বেলা ১২টার কিছু পরে মগবাজারের বাসা থেকে লাশবাহী গাড়ি বায়তুল মোকাররমের উদ্দেশ্যে যাত্রা করে বেলা ১টার দিকে বায়তুল মোকাররমে পৌঁছে। জানাজায় জামায়াতের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী অংশ নেন। জানাজার সময় বায়তুল মোকাররমের আশপাশের রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়। পুরো এলাকায় বিপুল সংখ্যক আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মোতায়েন ছিল।
জানাজার আগে আব্দুলাহ হিল আমান আযমী উপস্থিত লোকজনের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন, আমার বাবা এক মিথ্যা মামলায় এক হাজার দিনেরও বেশি সময় কারাবন্দি অবস্থায় মানবেতর জীবন যাপন করেছেন। তিনি ইসলামপ্রিয় এই জমিনে ইসলাম কায়েম করতে আজীবন সংগ্রাম করে গেছেন। তার ইন্তেকাল মানে এদেশ থেকে ইসলামের বিদায় নয়। লাখো লাখো গোলাম আযম এদেশে ইসলামের ঝান্ডা প্রতিষ্ঠা করবেন। আবার বাবা কারও মনে কোন কষ্ট দিয়ে থাকলে সন্তান হিসেবে আমি করজোরে মিনতি করছি, আপনারা আমার বাবাকে মাফ করে দেবেন। আযমী বক্তব্য রাখার সময় জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা বার বার ‘নারায়ে তকবির’ সেøাগান দেন।
বেলা ১১টার দিকে দৈনিক বাংলা মোড় এলাকায় গোলাম আযমের বিরুদ্ধে কয়েকজন একটি মিছিল বের করে। এসময় পর পর কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। তবে কারা বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে তা পুলিশ জানাতে পারেনি। এদিকে জানাজার আগে থেকে প্রেস ক্লাব এলাকায় গণজাগরণ মঞ্চের একাংশ ও কয়েকটি সংগঠন বিক্ষোভ করে।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs