সর্বশেষ সংবাদ :

হোমনার,ভষানীয়ার,মাধবপুরের রবিউলের মা্ডার্রে আসামী মুরাদনগরে গ্রফতার

Share Button

21

রিপোর্টঃ-মোঃ সফিকুর রহমান সেলিম
ঢাকা, ২০ অক্টোবর ২০১৪।

কুমিল্লা জেলার মুরাদনগর উপজেলার জাহাপুর ইউনিয়নের দরিকান্দি এলাকায় গোমতি নদী থেকে অজ্ঞাত যুবকের মৃতদেহের পরিচয় ও হত্যার রহস্য উদঘাটিত হয়েছে। তাকে হাত-পা বেধে আপন বড় ভাই হত্যা করেছে। এ ঘটনায় পুলিশ বড় ভাইকে গ্রেপ্তার করেছে।

গত রবিবার দুপুরে হাত-পা বাধা অবস্থায় মুরাদনগর থানা পুলিশ তার মৃতদেহ উদ্ধার করে। নিহতের নাম রবিউল আউয়াল (২৪)। সে পার্শ্ববর্তী হোমনা উপজেলার মাধবপুর গ্রামের ছায়েদ আলীর ছেলে।

এদিকে মুরাদনগর থানা পুলিশ হত্যার অভিযোগে আপন বড় ভাই মহসিনকে (৩৬) বৃহস্পতিবার গ্রেপ্তার করে শুক্রবার দুপুরে তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করে। ।

পুলিশ সুত্রে জানা যায়, গত রবিবার দুপুরে উপজেলার জাহাপুর ইউনিয়নের দরিকান্দি এলাকায় গোমতি নদী থেকে হাত পা বাধা অজ্ঞাত (২৪) যুবকের লাশ উদ্ধার করে তার সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে পুলিশ বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মাহবুবুর রহমান জানান, হত্যার রহস্য উদঘাটনের জন্য আমরা লাশ উদ্ধারের সন্ধান ও আশেপাশে কয়েকটি গ্রামে তদন্ত করে স্থানীয়দের কাছে কিছু তথ্য পাই। সেই তথ্যের ভিত্তিতে জাহাপুর ইউপির রানীমুহুরী গ্রামের আনোয়ার হোসেন (৩৫) এবং তার স্ত্রী নুরনাহার বেগমকে (৩০) প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসি।

জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানায়, নিহত রবিউল সম্পর্কে আনেয়ার হোসেনের শ্যালক এবং নুরনাহার বেগমের আপন ছোট ভাই।

তারা আরো জানান, রবিউল ছিল মাদকাসক্ত এবং গত ১৬ অক্টোবর বৃহস্পতিবার তার তিন ভাই জসিম, আলামিন ও রবিউল তাদের বোনের বাড়িতে বেড়াতে আসে। এক পর্যায়ে রবিউল মদ পান করার জন্য মদের বোতল নিয়ে আসলে তারা তাকে বাধা দিলে তাদের মধ্যে তুমুল ঝগড়ার সৃষ্টি হয়। এসব দেখে তারা তাকে একটি রুমে আটকে রেখে বাড়িতে তার বড় ভাই মহসিনকে বিষয়টি জানায়।

মহসিন বিষয়টি জানার পর রাত দশটার দিকে আলমগীর নামের একজনকে সঙ্গে নিয়ে আসে এবং গরুর রশি দিয়ে রবিউলের হাত পা বেধে বাড়িতে নিয়ে যাবে বলে সিএনজি অটোরিক্সা করে বোনের বাড়ি থেকে নিয়ে যায়।

তদন্তকারী কর্মকর্তা আরো জানান, তাদের এই তথ্যের উপর ভিত্তিতে আমরা মহসিনকে গ্রেপ্তর করি এবং তাকে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে সে বোনের বাড়ি থেকে তার ভাই রবিউলকে নিয়ে যাবার পর বাখরাবাদ গ্যাস ক্ষেত্রেরর উত্তর পাশের গোমতি নদীর ব্রিজে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা পর লাশ নদীতে ফেলার কথা স্বীকার করে।

থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাজিম উদ্দিন জানান, প্রাথমিকভাবে আটক মহসিন হত্যার কথা স্বীকার করেছে। হত্যার সঙ্গে জড়িত অন্যদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলেও তিনি জানান।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs