সর্বশেষ সংবাদ :

নাটোরের বড়াইগ্রামে দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহতের সংখ্যা ২৯ জন

Share Button
Nator_accidentbg_banglanews24_796738359
নাটোরের বড়াইগ্রামে দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহতের সংখ্যা ২৯ জন বলে নিশ্চিত করেছেন জেলা পুলিশ সুপার বাসুদেব বণিক।
রিপোর্টঃ-মোঃ সফিকুর রহমান সেলিম ঢাকা, ২০ অক্টোবর ২০১৪।

ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কে এই দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা নিয়ে ঘটনাস্থলে কর্তব্যরত বিভিন্ন পুলিশ কর্মকর্তার বিভিন্ন রকম তথ্যের মধ্যে সোমবার সন্ধ্যায় পুলিশ সুপার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ২৯ জন মারা গেছেন।

দুর্ঘটনাস্থল থেকে গুরুতর আহত বিভিন্নজনকে বিভিন্ন হাসপাতালে নেওয়া হয়, এদের অনেকে মারা যান। ফলে নিহতের সংখ্যা নিয়ে পুলিশ কর্মকর্তারা নানা তথ্য দিলে বিভ্রান্তি দেখা দেয়। নাটোরের পুলিশ সুপার বাসুদেব বলেন, “সবগুলো লাশ বনপাড়া হাইওয়ে থানায় এনে রাখা হয়েছে। সেখান থেকে লাশ স্বজনদের বুঝিয়ে দেওয়া হচ্ছে।” বনপাড়া হাইওয়ে থানার ওসি ফুয়াদ রুহানী সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আমার থানায় ২৩টি লাশ ছিল। পাঁচটি বাদে বাকিগুলো স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। পাঁচটি হস্তান্তরের প্রক্রিয়াও চলছে।” বনপাড়া থানায় যে ২৩টি লাশ ছিল, তার মধ্যে দুজন নারী এবং একটি শিশু রয়েছে। বনপাড়া থানার বাইরে নাটোর সদর হাসপাতাল ও উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ছিল ছয়টি লাশ। এই দুর্ঘটনায় হতাহত কারও পরিচয় তাৎক্ষণিকভাবে পাওয়া যায়নি। বেলা সাড়ে ৩টার দিকের এই দুর্ঘটনায় আহত অনেককে বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠানো হয়। এর মধ্যে চারজনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে পুলিশ সুপার জানান। বড়াইগ্রাম উপজেলায় বনপাড়া-হাটিকুমরুল মহাসড়কে রাজ্জাকের মোড় এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে বলে ওসি ফুয়াদ রুহানী জানান। “ঢাকা থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জগামী কেয়া পরিবহন এবং রাজশাহী থেকে সিরাজগঞ্জগামী অথৈ পরিবহনের দুটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়।” সংঘর্ষে দুটো বাসেরই সামনের অংশ দুমড়ে-মুচড়ে যায়। অথৈ পরিবহনের বাসটি রাস্তার ওপর উল্টে পড়ে এবং কেয়া পরিবহনের বাসটি রাস্তার পাশের ঢালে পড়ে যায়। দুর্ঘটনার পরপরই বড়াইগ্রাম থানার ওসি মনিরুল ইসলাম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ঘটনাস্থলেই ২০ জনের মৃত্যু হয়। আর বড়াইগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নেওয়ার পর মারা যান আরো তিনজন। দুই বাসেরই অধিকাংশ যাত্রী কমবেশি আহত হয়েছেন। স্থানীয়রা তাৎক্ষণিকভাবে ২০-২৫ জনকে উদ্ধার করে বনপাড়ার আমেনা হাসপাতাল ও উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যান। পরে তাদের মধ্য থেকে বিভিন্নজনকে বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠানো হয়। দুর্ঘটনার পর মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়, দুই ঘণ্টা পর যান চলাচল পুনরায় শুরু হয়। রাজশাহী বিভাগ ছাড়াও কুষ্টিয়া যেতে এই মহাসড়ক ব্যবহার করা হয়। দুর্ঘটনার কারণ খতিয়ে দেখতে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি করেছে নাটোর জেলা প্রশাসন। কমিটিকে তিন দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। নাটোরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আলীর নেতৃত্বে গঠিত এই কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল) এবং বিআরটিএ-র সহকারী পরিচালক। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই দুর্ঘটনায় হতাহতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। শোক জানিয়ে নিহতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরও।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs