সর্বশেষ সংবাদ :

সাতক্ষীরায় ২টি বাঘের চামড়া, ১০ রাউন্ড গুলিসহ আটক ৬

Share Button

photo-satkhira-tiger-news--1

রিপোর্টঃ-মোঃ সফিকুর রহমান সেলিম
ঢাকা, ১৮ অক্টোবর ২০১৪।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৮ বরিশাল ও সাতক্ষীরা র‌্যাব-৬ এর সদস্যরা বিশেষ অভিযান চালিয়ে সাতক্ষীরায় ২ টি বাঘের চামড়াসহ ৬ চোরাকারবারিকে আটক করেছে। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০ টায় সাতক্ষীরা-কালিগঞ্জ সড়কের ইটাগাছা সংগ্রাম টাওয়ারের সামনে থেকে র‌্যাব সদস্যরা তাদের আটক করে। এসময় তাদের কাছ থেকে দুটি বাঘের চামড়া, ১০ রাউন্ড গুলি, ৬টি মোবাইল ও দুটি নম্বর বিহীন মোটর সাইকেল উদ্ধার করা হয়।

আটককৃতরা হলেন, খুলনা জেলার ডুমুরিয়া থানার চেচোড়ি গ্রামের মোখলেছ গাজীর ছেলে গাজী সেলিম (৩৫), আশাশুনি উপজেলার দরগাহপুর গ্রামের মৃত মহিউদ্দিন আহম্মেদের ছেলে শেখ বখতিয়ার উদ্দিন সাবেক মেম্বর (৪২), খুলনা জেলার কয়রা উপজেলার চান্নিরচক গ্রামের মৃত ওয়াজেদ আলীর ছেলে রবিউল ইসলাম (৩৫), কয়রা উপজেলার মহারাজপুর গ্রামের মৃত শাহাজাহান আলীর ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান (৩৬), খুলনা জেলার পাইকগাছা উপজেলার রাড়–লি গ্রামের মৃত মোহাম্মাদ আলী সানার ছেলে ফারুখ সানা (২৫) ও খুলনা জেলার পাইকগাছা উপজেলার সাহাপাড়া গ্রামের সেকেন্দার আীরা ছেলে আমিরুল ইসলাম (২৫)।

শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০ টায় সাতক্ষীর র‌্যাব-৬ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে র‌্যাব-৮ এর উপ-অধিনায়ক মেজর আদনান কবির জানান, একটি চক্র মটরসাইলে যোগে সুন্দরবন থেকে ২টি বাঘের চামড়া নিয়ে সাতক্ষীরার দিকে আসছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সাতক্ষীরায় দায়িত্বরত র‌্যাব-৬ এর সদস্যদের সাথে নিয়ে ইটাগাছা সংগ্রাম টাওয়ারের সামনে ওৎপেতে থাকে। তারা সেখানে আসলে র‌্যাব সদস্যরা তাদেরকে চ্যালেঞ্জ করে। এসময় তাদের তল্লাশী করে দুইটি বাঘের চামড়া, ১০ রাউন্ড গুলি, ৬ টি মোবাইল ও দুুটি নম্বরবিহীন মটর সাইকেলসহ ৬ চোরাকারবারিকে আটক করা হয়।

তিনি আরও বলেন চোরাকারবারির প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে, তারা পাচারের উদ্দেশ্য চমড়া দুটি নিয়ে যাচ্ছিল। তারা সুন্দরবনের চোরকারবারিদের কাছ থেকে সাড়ে ৫ লাখর টাকার বিনিময়ে চামড়া ক্রয় করেছিল। তারা দীর্ঘদিন যাবৎ যোগসাজসে সুন্দরবন থেকে রয়েল বেঙ্গল টাইগার ও অন্যান্য পশু শিকার করে চামড়া দেশে ও দেশের বাহিরে অবৈধভাবে পাচার করে আসছে। তারা আরও স্বীকার করেছে তাদের সাথে আরও দুইজন আছে তারা হলেন খুলনা জেলার পাইকগাছা উপজেলার সান্তা গ্রামের মৃত আজাহার আলী শিকারীর দুই ছেলে এসএফ ও শাহবুদ্দিন। এ ঘটনায় আটজনকে আসামী করে সাতক্ষীরা সদর থানায় মামলা দায়ের ও তাদের হস্তান্তর করার প্রস্তুতি চলছিল।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs