সর্বশেষ সংবাদ :

আওয়ামী লীগ বিভক্তির রাজনীতি শুরু করেছে : মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

Share Button
10731066_725836184139008_7441105137672525713_n
রিপোর্টঃ-মোঃ সফিকুর রহমান সেলিম
ঢাকা, ১৮ অক্টোবর ২০১৪।
আওয়ামী লীগ বিভক্তির রাজনীতি শুরু করেছে : মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর
ঢাকা, অক্টোবর ১৮, শনিবার : বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব জনাব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আওয়ামী লীগের বিভক্তির রাজনীতি শুরুর কারণে অর্বাচীন বালক ও দুগ্ধ শিশুরা দেশের বিশিষ্ট ব্যক্তিদের শহীদ মিনারে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করার সুযোগ পেয়েছে। এতে আওয়ামী লীগের প্রচ্ছন্ন মদদ রয়েছে।তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন, যারা আজকে এসব করছে এরা কারা, তাদের এ কথা বলার অধিকার কে দিয়েছে।কিন্তু আমরা এ ব্যাপারে মোটেই উদ্বিগ্ন নই। তাদের বক্তব্যকে আমরা প্রধান্য দেই না। পিয়াস করিমের জানাযায় লাখো মানুষের উপস্থিতি প্রমান করে তিনি দেশের মানুষের খুব জনপ্রিয় ছিলেন।
আজ শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে অধ্যাপক ড. পিয়াস করিম স্মরণে আয়োজিত নাগরিক শোক সভায় তিনি এমন মন্তব্য করেন। বাংলাদেশ সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদ এ নাগরিক শোকসভার আয়োজন করে।
শহীদ মিনারে মরহুম ড. পিয়াস করিমকে শ্রদ্ধা জানানোর সুযোগ না দেয়ার নিন্দা জানিয়ে তিনি আরও বলেন, নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা শ্রদ্ধা জানানোর জন্য তার মরদেহ শহীদ মিনারে নিতে চেয়েছিলেন। আমরা এটাকে যৌক্তিক মনে করেছিলাম। দুর্ভাগ্য আমাদের একটি মহল যারা নিজেদের মুক্তিযুদ্ধের সন্তান বলে দাবি করে সেসব অর্বাচীন বালক ও দুগ্ধ শিশুরা শ্রদ্ধাভাজন ব্যক্তিদের নিয়ে কথা বলছেন। এটা আওয়ামী লীগের বিভক্তির রাজনীতি করার জন্য তারা বলার সুযোগ পেয়েছেন। এতে আওয়ামী লীগের প্রচ্ছন্ন মদদ আছে। এতে আমরা মোটেও উদ্বিগ্ন নই। এসব কথা যারা বলে তাদের এড়িয়ে যাওয়া ভালো।
আজকে দেশে ভয়ংকর চক্রান্ত চলছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, আজকে দেশে ভয়ংকর চক্রান্ত চলছে। আমাদের যতোটুকু সাধ্য আছে তা দিয়ে প্রতিরোধ করার চেষ্টা করছি। যারা মানুষের অধিকার হরণ করতে চায় তারা কখনোই সফল হতে পারবে না।
তিনি বলেন, এ দেশের মানুষ আন্দোলন সংগ্রাম করেই অতীতে তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছে। যারা মানুষের অধিকার হরণ করতে চায় তারা কখনোই সফল হতে পারেনি, পারবেওনা। তীব্র গণআন্দোলনের মাধ্যমেই আমাদের গণতান্ত্রিক অধিকার, ভোটের অধিকার, কথা বলার অধিকার ফিরিয়ে আনবো।
মরহুম পিয়াস করিমকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করে জনাব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আমরা অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বলার মানুষকে হারালাম। তিনি একজন পণ্ডিত মানুষ ছিলেন। পিয়াস করিমের অকাল মৃত্যুতে দেশের অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে।
তিনি মরহুম পিয়াস করিমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন।
সভায় বিশিষ্ট সাংবাদিক শফিক রেহমান বলেন, শহীদ মিনার এখন অপবিত্র, নোংরা স্থানে পরিণত হয়েছে। তাই কারো উচিত হবে না কোনো মৃত ব্যক্তি কেন জীবিত ব্যক্তিকেও সেই অপবিত্র জায়গায় নিয়ে যাওয়া। যতোদিন না আওয়ামী সরকার ক্ষমতায় থাকবে। শহীদ মিনার এখন আওয়ামী মিনারে পরিণত হয়েছে। তাই সবার উচিত এই মিনার বর্জন করা।
বাংলাদেশ সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক রুহুল আমিন গাজীর সভাপতিত্বে সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, বিশিষ্ট সাংবাদিক শফিক রেহমান, পিএসসির সাবেক চেয়ারম্যান জিন্নাতুন নেসা তাহমিদা বেগম, ফরহার মজহার, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহীম, জাতীয় প্রেসক্লাবে সাবেক সভাপতি শওকত মাহমুদ প্রমুখ।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs