সর্বশেষ সংবাদ :

রেলমন্ত্রীর বিয়ে : বর ও কনে পক্ষের আয়োজন

Share Button

1413543917Bodho_Rikttaimage_136617.mozibul-haque-rail-minister

রিপোর্টঃ-মোঃ সফিকুর রহমান সেলিম
ঢাকা, ১৭ অক্টোবর ২০১৪।

এ মাসের ৩১ তারিখেই শেষ হতে যাচ্ছে ৬৭ বছর বয়সী রেলমন্ত্রী মুজিবুল হকের ব্যাচেলর জীবন।
তিনি বিয়ে করছেন নিজের জেলা কুমিল্লাতেই। কনের নাম হনুফা। রেলমন্ত্রীর বাড়ি চৌদ্দগ্রামের বশুয়ারায়। আর কনের বাড়ি চান্দিনা উপজেলার গল্লাই ইউনিয়নের মীরাখোলায়।
বহুল আলোচিত এ বিয়ে উপলক্ষ্যে বর, কনে দুই বাড়িতেই চলছে মহা ধুমধাম। এ নিয়ে ব্যস্ত কুমিল্লার প্রশাসনও। তাছাড়া গোটা বাংলাদেশের মানুষও রেলমন্ত্রীর বিবাহিত জীবন শুরু করার অপেক্ষায়।
আগামী ২৯ অক্টোবর মন্ত্রীর গায়ে হলুদ ঢাকায় অনুষ্ঠিত হবে। বর সেজে বধু আনতে পাঁচ শতাধিক যাত্রী নিয়ে চান্দিনায় যাবেন ৩১ অক্টোবর। বিয়ের পর কিছুদিন বিরতি দিয়ে বৌভাত করবেন ১৪ নভেম্বর। অনুষ্ঠানটি শুরু হবে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে জাতীয় সংসদ ভবন চত্বরের দুই মন্বর এলডি হলে সন্ধ্যা সাতটায়। এতে সাড়ে তিন হাজার লোককে নিমন্ত্রণ করা হবে।
এ আয়োজনের জন্য এরিমধ্যে শুরু হয়ে গেছে বর পক্ষ থেকে নিমন্ত্রণপত্র বিতরণ। অন্যদিকে কনের বাড়িতে মহা ধুমধাম করে চলছে প্রস্তুতি।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কনের এক নিকট আত্মীয় জানান, মন্ত্রী, সচিবসহ উচ্চ পদস্থ ২ শত রাষ্ট্রীয় অতিথি এবং বরের নিজ নির্বাচনী এলাকা চৌদ্দগ্রাম এবং নিজ জেলা কুমিল্লার মিলিয়ে সর্বমোট ৫শত থেকে ৬শত বরযাত্রী চান্দিনায় আসার সম্ভাবনা রয়েছে। ভিআইপিসহ অতিথিদের মেহমানদারীর জন্য গ্রামের দেড়শত ব্যক্তি কাজ করবেন।
২২ অক্টোবর ডেকোরেশন, আলোকসজ্জার কাজ শুরু হবে বলে তিনি জানান। ঢাকা এবং কুমিল্লার দক্ষ  কারিগররা ওই কাজ করবেন।
খাবার তালিকা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে এখনই কিছু বলতে চাই না। তবে, আমাদের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ আপ্যায়নের ব্যবস্থা করার চেষ্টা থাকবে।
তবে কনে পক্ষের অন্য আরেকটি সূত্র জানায়, বিয়েতে মেনু হিসাবে থাকছে কাচ্চি, রোস্ট, জালি কাবাব, জর্দ্দা ও চাটনি। কনের বাড়িতে ১২শ’ মানুষের খাবারের আয়োজন থাকবে।
এসব আয়োজনের দেখভাল করার জন্য এরি মধ্যে বাড়িতে চলে এসেছেন কনের দুই প্রবাসী ভাই মো. আলাউদ্দিন এবং মো. নাছির উদ্দিন।
জানা গেছে, রান্নার সব আয়োজন করবেন কুমিল্লা ক্লাবের প্রধান বাবুর্চি মিল্টন রোজারিও। তিনি ২৯ তারিখ রাতেই কনের বাড়িতে পৌঁছে যাবেন।
সাজানো হচ্ছে কনের বাড়িঘর। চলছে সড়ক উন্নয়নের কাজ। চান্দিনা উপজেলা প্রকৌশলী’র অফিস সূত্রে জানা গেছে, গল্লাই-মিরাখোলা সড়কের ১ হাজার ৩ শত ৩২ মিটার রাস্তার উন্নয়ন কাজ শুরু করার প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৫ শত মিটার সড়কের কার্পেটিং করা হবে।
বাকী ৮ শত ৩২ মিটার সড়ক ইটের সলিং দিয়ে তৈরি হবে। ওই সড়কে ২টি কালভার্ট নতুন করে নির্মাণ করা হবে।
এ ছাড়া সড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে ৪শত মিটার রিটার্নিং ওয়াল নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। এই ল্েয স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর কুমিল্লার নির্বাহী প্রকৌশলী এ এস এম মুহসিন একাধিকবার সড়ক পরিদর্শনে আসেন।
কনের বাড়িতে যাওয়ার রাস্তাঘাট নির্মাণ কাজ আগামী ২৫ অক্টোবরের মধ্যে সম্পন্ন হবে বলে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার আশা প্রকাশ করেন।
বিয়ে উপলক্ষ্যে ধুম পড়ে গেছে কনের এলাকাবাসীদের মধ্যেও। রেলমন্ত্রী এ এলাকায় বিয়ে করছেন বলে তারা খুশি। তাছাড়া বিয়ে উপলক্ষ্যে এলাকার উন্নয়ন হওয়াতেও তাদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ কাজ করছে।
অন্যদিকে রেলমন্ত্রীর গ্রামের বাড়িতেও চলছে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা। ঢাকায় বৌভাত অনুষ্ঠিত হওয়ার পর ৬ ডিসেম্বর গ্রামের বাড়ি বশুয়ারায় আরেকটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে।  এতে ১০ হাজার লোককে নিমন্ত্রণ করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। আর পুরো অনুষ্ঠানটির আয়োজন করবেন এলাকাবসীই। বিশেষ করে চৌদ্দগ্রাম আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।
আয়োজনের সমন্বয়ক করা হয়েছে রেলমন্ত্রীর নিজের ইউনিয়ন শ্রীপুরের চেয়ারম্যান শাহজালাল মজুমদারকে। তার নিয়ন্ত্রণে কাজ করবেন আরো ৬০ জন।
বরের বিস্তারিত
চৌদ্দগ্রাম উপজেলার বশুয়ারার এক মুসলিম পরিবারে ১৯৪৭ সালে ৩১ মে  রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক মুজিব জন্মগ্রহণ করেন।
বাবা মৃত রজ্জব আলী। মা মৃত সোনাবান বিবি। আট ভাই ও এক বোনের মাঝে মুজিবুল হক সবার ছোট। উত্তর পদুয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাথমিক শিা লাভের পর মুজিবুল হক কাশিনগর বি.এম উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এস.এস.সি পাশ করেন ১৯৬৬ সালে।
কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে তিনি ১৯৬৮ সালে এইচএসসি এবং ১৯৭০ সালে বিকম পাশ করেন। তিনি বর্তমানে কুমিল্লা দণি জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহবায়ক।
কনের বিস্তারিত
কনে হনুফা আক্তার রিক্তা চান্দিনা উপজেলার গল্লাই ইউনিয়নের মীরাখোলা গ্রামের সম্ভ্রান্ত মুন্সী বাড়ির মৃত আবদুল হামি

দ উল্লাহ্ মুন্সী ও মা গৃহিনী জোসনা বেগম এর ২ ছেলে ও ৫ মেয়ের মধ্যে সবার ছোট। ১৯৮৫ সালের ২০ মে তিনি জন্মগ্রহণ করেন।
তিনি কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে চান্দিনা আবেদা নূর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২০০১ সালে এসএসসি পরীায় জিপিএ-৩.৫০ পেয়ে উত্তীর্ণ হন। বাংলাদেশ কারিগরি শিা বোর্ড, ঢাকার অধীনে আবেদা নূর উচ্চ মাধ্যমিক বিজনেস ম্যানেজমেন্ট ইন্সটিটিউট থেকে ২০০৩ সালে অনুষ্ঠিত এইচএসসি পরীায় জিপিএ-৩.৬৩ পেয়ে উত্তীর্ণ হন।
চান্দিনা রেদোয়ান আহমেদ কলেজ থেকে ২০০৬ সালে অনুষ্ঠিত বিএ পরীায় অংশ গ্রহণ করে উত্তীর্ণ হন। তিনি পরবর্তীতে ঢাকায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স ডিগ্রি লাভ করেন। পাশাপাশি ব্যাচেলর অব ‘ল (এলএলবি) পাস করেন।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs