সর্বশেষ সংবাদ :

রেলমন্ত্রীর বিবাহোত্তর সংবর্ধনা ১৪ নভেম্বর

Share Button

image_136617.mozibul-haque-rail-minister

আবদুর রহমান, কুমিল্লা (দক্ষিণ) থেকে

এগিয়ে আনা হয়েছে রেলপথমন্ত্রী ও কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের সংসদ সদস্য মুজিবুল হকের বিবাহোত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠান। আগামী ১৪ই নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে এ বিবাহোত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠান। এর আগে ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে এ অনুষ্ঠান হওয়ার কথা ছিল। রেলমন্ত্রীর বিয়ের অনুষ্ঠান আরো এগিয়ে আসায় কুমিল্লায় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের মধ্যে আনন্দের জোয়ার বইছে। আগামী ১৪ নভেম্বর জাতীয় সংসদ ভবনের এলডি হলে বিবাহোত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হবে বলে বিশ্বস্ত সূত্র জানিয়েছে। ওই অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী উপস্থিত থাকবেন বলে জানিয়েছে সূত্রটি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মন্ত্রীর এক সহকারীসহ একাধিক বিশ্বস্ত সূত্র কালের কণ্ঠ অনলাইনকে জানায়, মন্ত্রীর বিয়েতে এখন আপাতত তিন দিন বিয়ের অনুষ্ঠান করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। ২৯ অক্টোবর থেকে ৩ নভেম্বর মধ্যে যে কোন দিন বিয়ে হবে। আগামী ১৪ই নভেম্বর জাতীয় সংসদ ভবনের এলডি হলে বিবাহোত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হবে। সংসদ ভবনের হলে প্রায় সাড়ে তিন হাজার লোককে দাওয়াত করা হচ্ছে। এদিকে ৬ ডিসেম্বর রেলমন্ত্রীর গ্রামের বাড়ি কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার শ্রীপুর ইউনিয়নের বশুয়ারায় আরেকটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। সেখানে কুমিল্লার সর্বস্তরের নেতা-কর্মীরা অংশগ্রহণ করবে। সেখানেও প্রায় ১০-১২ হাজার মানুষকে দাওয়াত দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে, মন্ত্রীর বিয়ের আয়োজনে তাঁর নিজ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহ জালাল মজুমদারকে সমন্বয়ক করে ৬০ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি করা হয়েছে। কমিটির সদ্যসরা ইতোমধ্যে বিয়ের অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণপত্র ছাপানোসহ প্রয়োজনীয় কাজ শুরু করেছেন। তবে আয়োজন সম্পর্কে জানতে গতকাল বুধবার সমন্বয়ক শাহ জালাল মজুমদারের মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করেও সংযোগ স্থাপন করা সম্ভব হয়নি।

এ প্রসঙ্গে মন্ত্রীর নিজ নির্বাচনী এলাকা চৌদ্দগ্রাম উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুস সোবাহান ভূঁইয়া হাসান কালের কণ্ঠ অনলাইনকে বলেন, “আমাদের মন্ত্রী মহোদয় বিয়ে করছেন এটা আমাদের জন্য আনন্দের বিষয়। বর-কনের মধ্যে আগে থেকেই সম্পর্ক ছিল। আগামী ১৪ই নভেম্বর জাতীয় সংসদ ভবনের এলডি হলে বিবাহোত্তর সংবর্ধনা ও ৬ ডিসেম্বর মন্ত্রীর গ্রামের বাড়ি চৌদ্দগ্রামে আরেকটি অনুষ্ঠান হবে। আমরা এখন থেকেই সকল প্রস্তুতি শুরু করেছি।

রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক ১৯৪৭ সালের ৩১ মে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার শ্রীপুর ইউনিয়নের বশুয়ারা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম  মোহাম্মদ রজ্জব আলী, মায়ের নাম সোনাবান বিবি। আট ভাই ও এক  বোনের মধ্যে মুজিবুল হক সবার ছোট। তিনি স্থানীয় উত্তর পদুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাথমিক শিক্ষা লাভের পর ১৯৬৬ সালে বর্তমান কাশিনগর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশ করেন। পরে  কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে ১৯৬৮ সালে এইচএসসি এবং ১৯৭০ সালে বিকম পাশ করেন তিনি। তিনি বর্তমানে কুমিল্লা (দক্ষিণ) জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

অপর একটি সূত্র জানিয়েছে, রেলমন্ত্রীর হবু শ্বশুরবাড়ি জেলার চান্দিনা উপজেলার মীরাখোলা গ্রামে। কনের নাম হনুফা আক্তার রিক্তা। তিনি ১৯৮৫ সালের ২০ মে জন্মগ্রহণ করেন। রিক্তা ওই গ্রামের সম্ভ্রান্ত মুন্সী বাড়ির আবদুল হামিদ উল্লাহ মুন্সীর দুই ছেলে ও পাঁচ মেয়ের মধ্যে সবার ছোট। তিনি চান্দিনা আবেদা নূর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২০০১ সালে এসএসসি পাশ করেন। পরে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড, ঢাকার অধীনে আবেদা নূর উচ্চ মাধ্যমিক বিজনেস ম্যানেজমেন্ট ইন্সটিটিউট থেকে ২০০৩ সালে এইচএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ২০০৬ সালে চান্দিনা রেদোয়ান আহমেদ কলেজ থেকে বিএ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন তিনি। পরে  ঢাকার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স ডিগ্রি লাভ করেন রিক্তা। পাশাপাশি তিনি এলএলবিও সম্পন্ন করেন।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs