সর্বশেষ সংবাদ :

পেট্রোল ঢেলে মানুষ হত্যা করা হবে জানলে যুদ্ধ করতাম না’। কাদের সিদ্দিকী

Share Button

93703_1

রিপোর্টঃ-মোঃ সফিকুর রহমান সেলিম
ঢাকা, ০৮ অক্টোবর ২০১৪।

কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তম প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন, মানুষ আজ রাস্তায় চলাফেরা করতে পারে না। গুম হয়ে যায়। চারটি মুসলমান মানুষকে পুড়িয়ে অঙ্গার করা হয়েছে। তার বিচার হবে না এমনটা হতে পারে না। ঘরের দরজা বন্ধ করে পেট্রোল ঢেলে কাউকে পুড়িয়ে মেরে ফেলা হবে এমনটি জানলে আমি মুক্তিযুদ্ধ করতাম না।

বুধবার দুপুরে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার দক্ষিণ সোহাগ পাড়ায় দুর্বৃত্তদের দেয়া পেট্রোলের আগুনে পুড়ে মা-মেয়েসহ চারজন নিহত হওয়ার ঘটনাস্থল

কাদের সিদ্দিকী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনার বাবার জন্য ১৮ বছর নির্বাসন কাটিয়েছি, ২৮ বছর মাংস মুখে দেইনি। আপনি দুনিয়া জয় করতে পারেন, সমুদ্র জয় করতে পারেন। কিন্তু ঘরের ভিতরে পেট্রোল ঢেলে মানুষ হত্যা হলে আপনার ক্ষমতায় থাকার অধিকার থাকে না। আপনিও আসুন দেখুন দেশের আইন-শৃংখলা কেমন।

তিনি বলেন, পাকিস্তানি হানাদারদের ঘরবাড়ি জ্বালাতে দেখেছি, তারা ছনের ঘরে আগুন দিয়ে নিরীহ মানুষ হত্যা করেছে। সরকার বলছে আইন শৃংখলাসহ সবই ঠিক আছে। কিভাবে ঠিক আছে? মানুষ আজ ঘরের মধ্যেও নিরাপদ নয়। জনগণকে নিরাপত্তা দিতে না পারলে এই সরকারের জোর করে ক্ষমতায় থাকার কোন অধিকারই নেই। আজকে দেশে আইন-শৃংখলা নেই, আজকে দেশে মানবতা নেই, মনুষত্ত্ব নেই তাই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকার ঠান্ডা ঘরে বসে না থেকে এখানে আসুন দেখুন বিচার করুন।

তিনি উপস্থিত জনতাকে উদ্দেশ্য করে বলেন, যেভাবে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে এদেশ থেকে তাড়িয়েছি। তেমনিভাবে আপনারা পাশে থাকলে দেশের সকল অন্যায় ধুয়ে মুছে পরিষ্কার করে দেব।

তিনি আরও বলেন, আমি মরে গেলে আমার সন্তানদের জীবন নিরাপদ থাকবে না এমনটা হতে পারে না। দেশে যদি সুশাসন না থাকে তবে শক্র-মিত্র কারও জীবনই নিরাপদ নয়।

এ সময় তার সাথে উপস্থিত ছিলেন- তার স্ত্রী কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের কেন্দ্রীয় নেত্রী নাসরিন সিদ্দিকী, জেলা কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি আব্দুল হাই, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট রফিকুল ইসলামসহ মির্জাপুর উপজেলা নেতৃবৃন্দ।

পরে তিনি নিহতদের কবর জিয়ারত করেন।

উল্লেখ্য, বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় মঙ্গলবার গভীর রাতে জাহাঙ্গীর ও তার সঙ্গীয় লোকরা ঘরের ভিতর পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এসময় অগ্নিদগ্ধ হয়ে হাসনা বেগম ও মনিরা আক্তার, মীম আক্তার, মলি আক্তার মারা যায়। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে দুইজনকে গ্রেফতার করেছে।

Comments are closed.

Scroll To Top
Bangladesh Affairs