এমপি ও এডিসি রাজাকার পরিবারের পক্ষ নিয়ে নৌকাকে হারিয়েছে

Share Button

রিপোর্টার:-দৈনিক মুক্তকন্ঠ,
০১ ডিসেম্বর. ২০২১। সময : ০৭,০০.PM.

কুমিলার হোমনা উপজেলার মাথাভাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের ফলাফল বাতিল করে পুনরায় ভোট গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতিকের প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান নাজিরুল হক ভূইয়া। তিনি অভিযোগ করেন, স্থানীয় সংসদ সদস্য সেলিমা আহমেদ মেরি ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (এডিসি) নাজমা আশরাফি চিহ্নিত রাজকার পরিবারের পক্ষ নিয়ে নৌকাকে পরিকল্পিতভাবে হারিয়েছেন। তিনি এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলামের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। আজ বুধবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি জানান।

এ সময় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমাণ্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোশাররফ হোসেন, আওয়ামী লীগ নেতা আবুল কাশেম প্রধান, আব্দুল খালেক, সেলিম সরকার, আমজাদ মাষ্টার, আব্দুল মালেক, দিদারুল আলম, মানিক খন্দকার, আলী আহমেদ, শিপন সরকার প্রমূখ।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে নজিরুল হক ভূইয়া বলেন, নির্বাচনী তফশিল ঘোষণার পর থেকেই কুখ্যাত করিম রাজাকারের নাতি ও উপজেলা বিএনপির সভাপতির ভাগ্নে, ইউনিয়ন বিএনপির সহ-সভাপতি জাহাঙ্গীর আলমের পক্ষ নেন সংসদ সদস্য সেলিমা আহমেদ মেরি। নৌকা মার্কার প্রার্থী হলেও এমপি তাকে কোন সহযোগিতা করেননি। বরং এমপির নির্দেশে গত ২৮ নভেম্বর নির্বাচনের দিন বেলা দেড়টা থেকে ৫টা পর্যন্ত আমাকে আটকে রাখা হয়।

এরপর দলীয় নেতা-কর্মীদের ভয়ভীতি প্রদর্শন করে ও জোরপূর্বক সিল মেরে নৌকাকে পরাজিত করা হয়। সরকার ও আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে গভীর ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে এ ঘটনা ঘটনানো হয়েছে দাবি করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা বলেন, সরকারী বিরোধী নীল নকশা বাস্তবায়নের মাধ্যমে নৌকাকে পরাজিত করায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুব লীগ ও ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। তাই ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে হবে। মাথাভাঙ্গা ইউনিয়নে পূনরায় ভোট গ্রহণের আয়োজন করতে হবে।